‘অভিজ্ঞতায় আফগানিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে’

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কআফগানিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা! বাংলাদেশ যেখানে টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছে দেড় যুগ আগে সেখানে আফগানরা অভিষেক টেস্ট খেলার অপেক্ষায়। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সবচেয়ে ছোট সংস্করণে বাংলাদেশের চেয়ে দুই ধাপ এগিয়ে আফগানিস্তান। আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে আফগানিস্তানের অবস্থান অষ্টম, আর বাংলাদেশ দশম। অবশ্য র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকলেও আসন্ন টি-টোয়েন্টি সিরিজে শক্তি আর অভিজ্ঞতায় নিজেদের এগিয়ে রাখছেন মাহমুদউল্লাহ।

বাংলাদেশ দল সাকিব-তামিম-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর মতো চার অভিজ্ঞ ক্রিকেটারে সমৃদ্ধ। সৌম্য-লিটন-সাব্বিরের আক্রমণাত্মক ব্যাটিং বাড়তি শক্তি টাইগারদের। আফগানিস্তান সিরিজে সহ-অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া মাহমুদউল্লাহর চোখে তাই বাংলাদেশই এগিয়ে। রবিবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘ব্যাটিং গভীরতা এবং অভিজ্ঞতায় ওদের চেয়ে আমরা এগিয়ে।’ পেস আক্রমণেও বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখছেন মাহমুদউল্লাহ, ‘রুবেল আর মোস্তাফিজ অনেক দিন ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে। তারা জানে কীভাবে চাপ নিতে হয়। রনি আর রাহী তরুণ হলেও খুব ভালো বোলার।’

এবারের আইপিএলে রশিদ খান ও মুজিবুর রহমানের দারুণ পারফরম্যান্স। প্রতিপক্ষের দুই তরুণ স্পিনারের দিকে তাই বাড়তি নজর বাংলাদেশ দলের। মাহমুদউল্লাহ অবশ্য স্পিন আক্রমণেও এগিয়ে রাখছেন টাইগারদের, ‘সাকিব এখন বিশ্বসেরা বাঁহাতি স্পিনার। আমাদের আরেক বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল অপুও ভালো করছে। ওদের দলেও রশিদ আর মুজিবের মতো ভালো স্পিনার আছে। এক্ষেত্রে দুই দলের তুলনা করা কঠিন। তারপরও আমি বলবো, অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে আমাদের স্পিন আক্রমণ অনেক এগিয়ে।’ 

তবে রশিদকে নিয়ে যে প্রতিনিয়ত আলাদা পরিকল্পনা হচ্ছে, সে কথা জানাতেও ভোলেননি, ‘অনুশীলনের ফাঁকে আমরা রশিদকে নিয়ে আলোচনা করি। আমরা  জানি, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সে বিশ্বের সেরা বোলার। অবশ্যই তাকে সমীহ করতে হবে।  তবে রশিদকে খেলাই যাবে না এটা ভাবা যাবে না। আমাদের ব্যাটসম্যানদের সচেতন থাকতে হবে। ব্যাটসম্যানরা ভালো খেলতে পারলে ইতিবাচক ফলের আশা করা যায়।’

সব মিলিয়ে একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজের আশা করছেন মাহমুদউল্লাহ, ‘টি-টোয়েন্টিতে আফগানিস্তান খুব ভালো দল। তাদের ব্যাটিং-বোলিং ভালো, তারকা ক্রিকেটারও আছে। তাদের বিপক্ষে খুব ভালো খেলতে না পারলে জেতা সম্ভব নয়।’

Print Friendly, PDF & Email