আফগানিস্তান-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও কোচ কোর্টনি ওয়ালশ

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ককোচ নিয়ে বিসিবির ম্যারাথন নাটক চলছে। গত বছরের ডিসেম্বরে চন্দিকা হাথুরুসিংহে অব্যাহতি দেওয়ার পাঁচ মাস পরেও জাতীয় দলের জন্য প্রধান কোচের সন্ধান পায়নি বিসিবি! এর মাঝেই দেশ ও দেশের বাইরে চারটি সিরিজ খেলা হয়ে গেছে। সর্বশেষ নিদাহাস ট্রফিতে বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের অধীনে খেলেছে সাকিবরা। এবার ইঙ্গিত পাওয়া গেল, আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও নাকি প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করবেন ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি।

হাথুরুসিংহে বিদায় নেওয়ার পর ঘরের মাঠে তিনটি সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ শেষে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলে টাইগাররা। জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজনের কোচিংয়ে তিনটি সিরিজেই ভরাডুবি হয়। প্রবল সমালোচনার মুখে বোর্ডের সব দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন সুজন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনি তেমনটা করেননি।

ওই পরিস্থিতিতে গত মার্চে ভারতকে নিয়ে শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফিতে টাইগারদের ভারপ্রাপ্ত কোচের দায়িত্ব দেওয়া হয় ক্যারিবিয়ান পেস কিংবদন্তি কোর্টনি ওয়ালশকে। সেটাই ছিল কোনো জাতীয় দলের হয়ে ওয়ালশের প্রথম কোচিং মিশন। ওই সিরিজে বেশ সাফল্য আসে। ভারতের কাছে প্রায় জিতে যাওয়া ফাইনাল ম্যাচটি হেরে রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ। নিঃসন্দেহে কোচ হিসেবে কোর্টনি ওয়ালশের এটা বড় সাফল্য। ওই সিরিজ শেষে দেশে ফিরে প্রধান কোচ হওয়ার ইচ্ছার কথাও জানান ক্যারিবীয় কিংবদন্তি।

কিন্তু বিসিবির পক্ষ থেকে বলা হয়, ওয়ালশকে প্রধান কোচের দায়িত্ব দেওয়ার পরিকল্পনা তাদের নেই। ওয়ালশ হলেন বোলার, একজন ব্যাটসম্যানকে প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিতে চায় বিসিবি। সেই থেকে চলছে খোঁজ। যা আজ অবধি শেষ হয়নি। আজ মিরপুরে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান বললেন, ‘যেহেতু আমরা নতুন কোচ পাইনি, তাই শেষ সিরিজে যারা স্টাফ ছিলেন তারাই থাকবেন। শ্রীলঙ্কায় যারা যে দায়িত্বে ছিল সেই দায়িত্বেই থাকবেন।’

এই কথা বলার পাশাপাশি আকরাম খান আরও বলেন, নতুন কোচের অধীনেও এই দুটি সিরিজ খেলতে পারে টাইগাররা। তার মানে সেই অনিশ্চয়তায় দোদুল্যমান বিসিবি। এই অনিশ্চয়তার শেষ কবে হবে, কোন বিখ্যাত কোচের মাধ্যমে হবে সেটা সময়ই বলে দেবে।

Print Friendly, PDF & Email