ওপেনার হিসেবে নিজের অবস্থানটা দৃঢ় করতে চান লিটন

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কটেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি- তিন ফরম্যাটে টাইগারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রানের মালিক তামিম ইকবাল। সব ফরম্যাটে টপ স্কোরার বলেই শুধু নন, সন্দেহাতীতভাবেই বাংলাদেশের এক নম্বর ওপেনারও তামিম। যার ব্যাটে প্রায় নিয়মিত রান আসে।

এইতো ক’দিন আগে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটেও তামিমের ব্যাট কথা বলেছে। নিয়মিত রানও এসেছে; কিন্তু গত তিন চার বছর বন্দর নগরির এ বাঁ-হাতি ওপেনারের সাথে তাল মিলিয়ে সে অর্থে ভাল খেলতে পারেননি কেউ। যে কারণে জুটিও গড়ে ওঠেনি।

এক কথায় টিম বাংলাদেশের সীমিত ওভারের উদ্বোধনী জুটিই এখন পর্যন্ত স্থির নয়। কেউ বলতে পারবেন না আসলে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি কাদের নিয়ে গড়া? একেকবার এবং একেক সিরিজ ও আসরে একেকজন!

 

একই অবস্থা সৌম্য সরকারের। রীতিমত উল্কার বেগে শুরু করেছিলেন এ বাঁ-হাতি ওপেনার। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে শুরু। তারপর পাকিস্তান আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২০১৫ সালে ব্যাট হাতে আলোড়ন তোলা বাঁ-হাতি সৌম্য প্রথম ১৬ ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে এক শতকসহ (২০১৫ সালের ২২ এপ্রিল শেরে বাংলায় ১২৭*) তিন তিনটি ম্যাচ জেতানো বিগ ইনিংস (এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে, ৮৮ ও ৯০) উপহার দিয়ে হয়ে যান ম্যাচ সেরা।

মনে হচ্ছিল, তামিমের সঙ্গী হিসেবে সৌম্যই আদর্শ। টিকে যাবেন; কিন্তু হায়! এক সময় সৌম্যও রান করাই ভুলে গেলেন। রান খরায় ভোগার কারণে এবার এশিয়া কাপে ১৫ জনের দলেই জায়গা হয়নি তার। অবশেষে ঘুরে-ফিরে এখন লিটন দাসই ভরসা।

ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রায় সব ফরম্যাটে রান করা লিটন অনেক দেরিতে হলেও নিজেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে পেয়েছেন। তার ব্যাট অবশেষে হাসতে শুরু করেছে। নতুন ব্যাটিং কোচ নেইল ম্যাকেঞ্জি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে লিটনের ব্যাটিং দেখে খুশি।

ধারণা করা হচ্ছে এশিয়া কাপে তামিমের সাথে লিটনকে দিয়েই ইনিংস ওপেন করানো হবে। প্র্যাকটিসের ধরন এবং ব্যাটিং কোচ ম্যাকেঞ্জির কথা শুনে মনে হচ্ছে, এশীয় ক্রিকেটের শ্রেষ্ঠত্বের আসরে তামিম-লিটনই হতে যাচ্ছেন উদ্বোধনী জুটি।

লিটন দাসও এটিকে একটি ভালো সুযোগ মনে করছেন। তাই মুখে এমন আশাবাদী সংলাপ, ‘আমি অনেক দিন থেকে ওয়ানডে দলের বাইরে। যদি সুযোগ পাই তাহলে অবশ্যই ভালো করার চেষ্টা করবো।’

মূল পর্বের আগে প্রাথমিকভাবে এশিয়া কাপে বাংলাদেশকে খেলতে হবে শ্রীলঙ্কা আর আফগানিস্তানের বিপক্ষে। লিটন দাস এখন থেকেই ওই দুই ম্যাচকে টার্গেট করে এগুনোর কথা ভাবছেন। নিয়মিত ওপেন করা এবং তামিম ইকবালের সঙ্গী হবার প্রথম ধাপ হিসেবে লিটন ওই দুই ম্যাচে ভাল খেলাকেই বোঝাতে চাইছেন।

সে কারণেই নিয়মিত ওপেন করার ব্যাপারে তার মুখে এমন বক্তব্য, ‘নিয়মিত বলতে আসলে ব্যাপারটি অন্যরকম বোঝাচ্ছে। সামনে আমাদের এশিয়া কাপের দুটি ম্যাচ আছে। ওগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে যদি সুযোগ থাকে ভালো করার আমি অবশ্যই চেষ্টা করবো।’ 

Print Friendly, PDF & Email