চ্যাম্পিয়নস লিগে নেইমারের হ্যাটট্রিকে পিএসজির বড় জয়

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ককিক অফের আগেই ফলটা অনুমিত ছিল। চ্যাম্পিয়নস লিগ সংস্করণ চালুর পর এবারই প্রথম এই টুর্নামেন্টে খেলছে একটা দল। আর তাদের প্রতিপক্ষ সেই টুর্নামেন্টেরই শিরোপা জিততে মরিয়া। এ জন্য তারা ট্রান্সফার ফির রেকর্ড নতুন করে লিখিয়ে দলে ভিড়িয়েছে নেইমারকে। বলা হচ্ছে রেড স্টার বেলগ্রেড আর পিএসজির কথা।

চ্যাম্পিয়নস লিগে অসম শক্তির এ দুটি দলের মুখোমুখিতে পিএসজির জেতাই স্বাভাবিক। তবে এই জয়কে রাঙিয়ে দিয়েছে নেইমারের হ্যাটট্রিক।

আশি দশক ও নব্বইয়ের শুরুর দিকের ফুটবলপ্রেমীদের কাছে রেড স্টার ‘নস্টালজিক’ এক নাম। ১৯৯১ সালে তারা ইউরোপিয়ান কাপ জিতলেও পরের বছর টুর্নামেন্টটির নাম চ্যাম্পিয়নস লিগ হওয়ার পর দলটি এবারই প্রথমবারের মতো খেলছে চূড়ান্ত পর্বে।

নাপোলির বিপক্ষে আগের ম্যাচ গোলশূন্য ড্র করলেও পিএসজির বিপক্ষে বড় হার এড়াতে পারেনি সার্বিয়ান ক্লাবটি। নেইমারের দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে পার্ক দেস প্রিন্সেসে রেড স্টারকে ৬-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে টমাস টুখেলের দল।

হার-জিতের হিসাবটা পিএসজি মিটিয়ে ফেলেছে প্রথমার্ধেই। এ সময় চার গোল করেছে ফরাসি ক্লাবটি। একপেশে এ ম্যাচের ২০ মিনিটে ফ্রি কিক পেয়েছিল পিএসজি। ২৫ গজ দূর থেকে নিখুঁত শটে গোল করেন নেইমার। এর দুই মিনিট পরই কিলিয়ান এমবাপ্পের সঙ্গে ওয়ান-টু খেলে নিজের দ্বিতীয় গোলটি তুলে নেন ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ড। এরপর ৩৭ ও ৪১ মিনিটে পিএসজির হয়ে আরও দুটি গোল করেন এডিনসন কাভানি ও অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া।

বিরতির পর ১০ মিনিটের মধ্যে আরও দুটি গোল হজম করতে পারত রেড স্টার। কিন্তু নেইমার ও এমবাপ্পেকে এ যাত্রায় রুখে দেন দলটির গোলরক্ষক মিলান বোরান। কিন্তু ৬৯ মিনিটে আর পারেননি। নেইমারের পাস পেয়ে টি মারিয়ার নেওয়া শট রুখে দিয়েছিলেন তিনি। ফিরতি বল পেয়ে সতীর্থকে আবারও পাস বাড়ান নেইমার। সেখান থেকে গোল করেন এমবাপ্পে।

এর ৪ মিনিট পর ইউরোপের সেরা ক্লাব টুর্নামেন্টে ২৬ বছর পর রেড স্টারকে গোলের মুখ দেখান মার্কো মারিন। কিন্তু চমকের তখনো বাকি ছিল। ৮১ মিনিটে ম্যাচের সবচেয়ে সুন্দর গোলটি করেন নেইমার। সেই ফ্রিকিক থেকেই। ২৫ গজ দূর থেকে বাঁকানো শটে ডান কোনা দিয়ে বল জালে জড়ান তিনি।

২০০৯ সালে জুরিখের বিপক্ষে ফ্রি কিক থেকে সরাসরি দুটো গোল করেছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তারপর চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে এক ম্যাচে ফ্রিকিক থেকে সরাসরি দুটি গোল করলেন নেইমার। চ্যাম্পিয়নস লিগে ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতার (৩০) তালিকায় নেইমার এখন কাকার সঙ্গে যুগ্মভাবে শীর্ষে।

‘সি’ গ্রুপ থেকে অন্য ম্যাচে নাপোলির কাছে ১-০ গোলে হেরেছে লিভারপুল। ম্যাচের শেষ মিনিটে গোল করে অলরেডদের হৃদয় ভাঙেন নাপোলির ইতালিয়ান ফরোয়ার্ড লরেঞ্জো ইনসাইন।

Print Friendly, PDF & Email