ধর্ষণ মামলার আসামি ভারোত্তোলক সোহাগ আলী গ্রেফতার

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কএক নারী ভারোত্তোলককে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে ভারোত্তোলন ফেডারেশনের অফিস সহকারী সোহাগ আলীকে গ্রেফতার করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। গত সোমবার রাতে নেত্রকোনার কেন্দুয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পরদিন ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদনের প্রেক্ষিতে এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

গত বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ভবনে এক ভারোত্তোলককে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে সোহাগ আলীর বিরুদ্ধে। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত সেই ভারোত্তোলক ২৩ অক্টোবর ভর্তি হন হাসপাতালে। চিকিৎসা শেষে এখন তিনি অনেকটা সুস্থ।

অভিযুক্ত সোহাগ আলীকে আসামি করে ২৯ নভেম্বর পল্টন থানায় মামলা হয়েছিল। ঘটনার পর থেকে তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন। অবশেষে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমেনা খাতুনের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি দল নেত্রকোনার কেন্দুয়া থানার সহযোগিতায় তাকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতার অভিযান পরিচালনা হয়েছে অভিনব কৌশলে। বিয়ের কথা বলে থানায় ডেকে পাঠিয়ে সোহাগ আলীকে গ্রেফতার করা হয়। তবে গ্রেফতারের সময় কয়েক শ’ এলাকাবাসী তাকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল।  

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমেনা খাতুন বলেছেন, ‘ভারোত্তোলকের সঙ্গে বিয়ের কথা বলে কৌশলে সোহাগ আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় থানা আমাদের সহযোগিতা করেছে। গ্রেফতারের সময় এলাকাবাসী থানা ঘেরাও করলে তাদের বুঝিয়ে-শুনিয়ে আসামিকে ঢাকায় আনা হয়েছে। সে এখন রিমান্ডে আছে।’

তবে রিমান্ডে নারী ভারোত্তোলককে যৌন নির্যাতনের কথা স্বীকার করেনি সোহাগ আলী।

অভিযুক্ত ব্যক্তি গ্রেফতার হওয়ায় যৌন নির্যাতিত ভারোত্তোলকের পরিবারের সদস্যরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন। মেয়েটির মামা বলেছেন, ‘আমরা শুনেছি সোহাগ আলী গ্রেফতার হয়ে রিমান্ডে আছে। আমরা অনেক দিন ধরে এই খবরটার অপেক্ষায় ছিলাম।আমরা তার সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।’

Print Friendly, PDF & Email