‘ফণী’র কারণে ম্যাচ বাতিল, যৌথ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ-লাওস

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কবৈরি আবহাওয়ার কারণে মাঠে গড়ায়নি বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ ইন্টারন্যাশনাল গোল্ড কাপের ফাইনাল। পরে দুই ফাইনালিস্ট বাংলাদেশ ও লাওসকে প্রথম আসরের যৌথ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুক্রবার (৩ মে) সন্ধ্যা ৬টায় ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ ও লাওসের। কিন্তু ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র প্রভাবে অব্যাহত বৃষ্টিপাতের কারণে মাঠ খেলার অনুপযুক্ত হয়ে পড়ে। যদিও খেলা শুরু হওয়ার আগে আবহাওয়া ঠিকই ছিল তবু ঘূর্ণিঝড়ের কারণে কোনো ঝুঁকি নিতে রাজি হয়নি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। 

শুরুতে যদিও ম্যাচ শুরু করার পরিকল্পনার কথা শোনা গিয়েছিল। কিন্তু পরে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর ফলে যৌথভাবে হলেও বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ ইন্টারন্যাশনাল গোল্ড কাপের প্রথম আসরেই চ্যাম্পিয়নের খেতাব জিতলো বাংলাদেশের মেয়েরা। 

সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় প্রেসবক্সে এসে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘আমরা অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে ঘূর্ণিঝড় ফনীর কারণে ও সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা বাতিল ঘোষণা করা হলো। বাংলাদেশ ও লাওসকে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হলো। আয়োজক কমিটি, এএফসি ও দুই দলের প্রতিনিধি সবার সাথে আলোচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ফাইনাল আয়োজনের সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়ার পরও ভয়াবহ ফণীর কথা মাথা রেখেই খেলা বাতিল করা হয়েছে। এ জন্য আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি। এই সিদ্ধান্ত কেউই কামনা করেনি।’

গ্রুপ পর্বে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ২-০ হারিয়ে এবারের আসর শুরু করা বাংলাদেশের মেয়েরা পরের ম্যাচে কিরগিজস্তানকে হারিয়েছিল ২-১ গোলের ব্যবধানে। এরপর সেমিতে গোলাম রব্বানী ছোটনের দল মঙ্গোলিয়াকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল।

অন্যদিকে গ্রুপ পর্বে মঙ্গোলিয়াকে ৫-০ গোলে এবং তাজিকিস্তানকে ৬-০ গোলে হারিয়েছিল লাওসের মেয়েরা। এরপর সেমিতে তাদের কাছে ৭-১ গোলে পরাস্ত হয়েছিল কিরগিজস্তান।

এবারের আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা লাওসের ফরোয়ার্ড পি কেওতা (৮টি)। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতাও এই দলটিরই ডিফেন্ডার সেসামোন ইনথাফোন (৪টি)।

Print Friendly, PDF & Email