বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে বাংলাদেশ

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কগত শুক্রবার লাওসের মাঠে জিতেছিল বাংলাদেশ। বিশ্বকাপের প্রাক বাছাইয়ে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে মঙ্গলবার ঢাকায় ফিরতি ম্যাচে মুখোমুখি হয় তারা। এই ম্যাচ গোলশূন্য ড্র করেও কাতার বিশ্বকাপের বাছাই নিশ্চিত করলো।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পরের ধাপে খেলার জন্য বাংলাদেশের দরকার ছিল ড্র। মঙ্গলবার প্রাক বাছাই পর্বে নিজেদের মাঠে লাওসের সঙ্গে গোল শূন্য ড্র করেই সেই যোগ্যতা অর্জন করেছে জেমি ডের শিষ্যরা। দুই লেগ মিলিয়ে ১-০ গোলের অগ্রগামিতায় পরের পর্বে বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে একাদশে দুটি বদল নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। দুই ফরোয়ার্ড মতিন মিয়া ও আরিফুর রহমানের জায়গায় আসেন মামুনুল ইসলাম ও রবিউল হাসান।

ম্যাচের শুরু থেকে স্বাগতিকরা একটু দেখেশুনে খেলার চেষ্টা করেছে। লাওস তেমন কোনও পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি বাংলাদেশের গোলরক্ষককে। বরং লাল-সবুজরা আক্রমণে উঠে অনেক গোলের সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় সেগুলো কাজে লাগাতে পারেনি দল।

প্রথমার্ধের ৮ মিনিটে মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়ার ফ্রি কিকে প্রতিপক্ষের এক ডিফেন্ডারের ব্যাক হেড থেকে বল পেয়ে ডিফেন্ডার ইয়াছিন খান পা ছোঁয়াতে পারেননি। পরের মিনিটে প্রথম লেগের গোলদাতা রবিউলের সরাসরি কর্নার গোলকিপার পোস্টে ঢোকার মুহূর্তে ফিরিয়ে দেন।

১৬ মিনিটে মিডফিল্ডার মাশুক মিয়ার জনির পাসে বক্সে ঢুকে নাবীব নেওয়াজ জীবনের গড়ানো শট গোলকিপারের হাতে জমা পড়ে। তবে ২৪ মিনিটে লাওস বলার মতো একটি সুযোগ পায়। ডিফেন্ডার ইয়াছিনের ব্যাক পাস থেকে বিপদে পড়তে পারতো বাংলাদেশ। লাওসের ফরোয়ার্ড ভান্নাসনের দোয়াংমাইতি বলের নাগাল পাওয়ার আগেই গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানা বিপদমুক্ত করেন।

এরপরে জীবন একাই তিনটি সুযোগ নষ্ট করেন। ২৫ মিনিটে ডিফেন্ডার বিশ্বনাথের থ্রু থেকে তিনি গোলকিপারকে টপকে লক্ষ্যভেদ করতে ব্যর্থ হন।

২৯ মিনিটে রবিউলের লম্বা থ্রো ইন থেকে জীবন চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু গোলকিপার এর আগেই বল গ্রিপে নেন। ৩৮ মিনিটে তো সুর্বণ সুযোগ নষ্ট হয়। রবিউলের লবে বক্সে ঢুকে জীবন সামনে এগিয়ে আসা গোলকিপারের মাথার উপর দিয়ে শট মারলেও তা ক্রসবারের অনেক উঁচু দিয়ে যায়।

বিরতির পর জীবন আবারও সুযোগ নষ্ট করেন। ৫৩ মিনিটে বদলি ফরোয়ার্ড ইব্রাহিমের ক্রসে জীবনের হেড গোলকিপারের হাতে জমা পড়লে হতাশ হয় দল।

৭৮ মিনিটে জীবনের ক্রসে বদলি ফরোয়ার্ড মাহবুবুর রহমান সুফিল গোলমুখে প্লেসিং করতে ব্যর্থ হলে স্টেডিয়ামে উপস্থিত প্রায় হাজার দশেক সমর্থকদের অপেক্ষার প্রহর বাড়ে।

লাওস মাঝেমধ্যে আক্রমণে উঠলেও বলার মতো তেমন সুযাগ পায়নি শেষ অর্ধে। ৮৮ মিনিটে বাংলাদেশের শেষ প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। বদলি নামা সোহেল রানার ক্রসে ইব্রাহিমের হেডে ক্রসবারের উপর দিয়ে বল চলে যায়। শেষ পর্যন্ত গোলশূন্য ড্রতেই ম্যাচ শেষ হয়েছে।

বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ৪০টি দল আট গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলবে। প্রতি গ্রুপে থাকবে পাঁচটি দল। রাউন্ড রবিন পদ্ধতিতে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ম্যাচে মুখোমুখি হবে দলগুলো। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং সেরা চার রানার্স-আপ বাছাই পর্বের পরবর্তী ধাপে খেলার সুযোগ পাবে।

Print Friendly, PDF & Email