ভারোত্তোলনে সেরা খুলনা

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক বাংলাদেশ যুব গেমসের ৬ষ্ঠ দিনে শেস হয়েছে ভারোত্তলন। মেয়েদের ৪৪ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে ৭৩ কেজি তুলে সেরা হয়েছেন রংপুর বিভাগের হামিশা পারভীন। ৬৭ কেজি তুলে দ্বিতীয় মারজিয়া আক্তার ইকরা, ৬৩ কেজি তুলে তৃতীয় রহিমা খাতুন।৪৮ কেজিতে সেরা খুলনা বিভাগের নুরজাহান আক্তার ময়না। স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে তিনি তুলেছেন ৭৩ কেজি। মনিকা রায় (৭০ কেজি) রুপা ও ৫৭ কেজি তুলে শাকিলা ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। ৫৩ কেজিতে সেরা রংপুর বিভাগের গিনি রানী রায়; স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে ৭৯ কেজি তুলেছেন তিনি। তারিন (৭৬ কেজি) রূপা ও সামিয়া (৫১ কেজি) এই ইভেন্টের ব্রোঞ্জ জিতেছেন।

৬৩ কেজিতে স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে ৭২ কেজি তুলে স্বর্ণ জিতেছেন খুলনা বিভাগের বাঁধন। ৫০ কেজি তুলে সুচিত্রা রুপা এবং ৫০ কেজি তুলে রহিমা আক্তার উর্মি ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। ৫৮ কেজি ওজন শ্রেণিতে সেরা খুলনা বিভাগের খাদিজা খাতুন (৮৭ কেজি)। এই বিভাগে রুপা জিতেছেন ঢাকা বিভাগের মাহিয়া জান্নাতুন নুর (৬৫ কেজি)ছেলেদের ৫০ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে ১৪৩ কেজি উত্তোলন করে স্বর্ণ জিতেছেন আশিকুর রহমান তাজ। ১৩৮ কেজি তুলে সাইদুর রহমান রকি রুপা, ১৩৩ কেজি তুলে নাইম খান ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। বালক বিভাগের ৫৬ কেজিতে সেরা নুর আলম ইসলাম। সব মিলিয়ে ১৭৫ কেজি তুলেছেন তিনি। ইমাম শিকদার (১৬১ কেজি) রুপা ও বকুল আহমেদ (১৫৫ কেজি) ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। ৬২ কেজিতে সেরা হওয়া হুমায়ন কবির স্ন্যাচ এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্ক মিলিয়ে তুলেছেন ১৭৩ কেজি।

এই বিভাগে ইকবাল বারি (১৭০ কেজি) রুপা এবং বিধান চন্দ্র রায় (১৬০ কেজি) ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। ৬৯ কেজিতে সেরা হওয়া নাঈম তুলেছেন ১০০+১১০ মিলিয়ে ২১০ কেজি। জাহিদুল ইসলাম (১৫৫ কেজি), ইয়াসিন আরাফাত (১৫০ কেজি) ব্রোঞ্জ জিতেছেন। ৭৭ কেজিতে সেরা হওয়া আপন রায় ২১৫ কেজি (৯৫+১২০ কেজি) তুলেছেন। এই বিভাগে শরিফুল ইসলাম (১৬৫ কেজি) রুপা ও সজিব শেখ (১৩৫ কেজি) ব্রোঞ্জ পেয়েছেন।

 

Print Friendly, PDF & Email