মুশফিকের সেঞ্চুরির পরেও হারের শঙ্কায় উত্তরাঞ্চল

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ক : মুশফিক সেঞ্চুরি পেলেও ম্যাচের লাগাম ধরে রাখতে পারেনি উত্তরাঞ্চল। মধ্যাঞ্চল প্রথম ইনিংসে করেছিল ৫২৩ রান। তৃতীয় দিনে এই রান তাড়া করতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে মুশফিকরা। মুশফিকুর রহিমের সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে ২৮৬ রান তুলেছে উত্তরাঞ্চল। মুশফিক ১০১ রানে অপরাজিত থাকলেও ম্যাচের পরিণতির অপেক্ষায় মধ্যাঞ্চল!  

বুধবার মধ্যাঞ্চলের অলআউটের পর ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ১ ওভার খেলতে পেরেছে উত্তরাঞ্চল। তৃতীয় দিন অবশ্য শূন্য রান নিয়ে দুই ওপেনার মিজানুর ও জুনায়েদ বেশিদূর যেতে পারেননি। দলীয় ১১ রানে ওপেনার জুনায়েদ সাজঘরে ফেরেন। দ্বিতীয় উইকেটে নাজমুল ও মিজানুর মিলে ৭২ রানের জুটি গড়েন। নাজমুল হোসেন শান্ত ৩৬ বলে ৯ চারে ৪৫ রানের ইনিংস খেলে আউট হন। সঙ্গীকে হারিয়ে মিজানুরও ৩২ রানে ফিরে যান।

এরপর এক প্রান্ত মুশফিক আগলে রাখলেও অন্যপাশ থেকে নিয়মিত উইকেট পড়তে থাকে। যোগ্য সঙ্গী পাননি কোনও। ৬ষ্ঠ উইকেটে কেবলমাত্র আরিফুল হক মুশফিককে সঙ্গ দিতে পেরেছেন। ওই জুটিতেই ৯৩ রান আসে। আরিফুল ৪২ রানের ইনিংস খেলে আউট হলে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে নামা তাইজুলকে সঙ্গে নিয়ে অষ্টম উইকেটে ৭০ রানে তৃতীয় দিন শেষ করেন। তাইজুল ৬২ বলে তিন চারে ২১ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত আছেন।

মুশফিক এদিন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে তার নবম সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। ১৯৯ বলে সাত চার ও ১ ছক্কায় তিনি তার ১০১ রানের ইনিংসটি সাজিয়েছেন। তার ইনিংসের ওপর ভর করেই ২৮৬ রান তুলতে পেরেছে উত্তরাঞ্চল। যদিও ২৪৩ রানে পিছিয়ে আছে তারা। এই রান টপকাতে মুশফিকের পাশাপাশি বাকি তিন ব্যাটসম্যানকেও গুরু দায়িত্ব নিতে হবে।

মধ্যাঞ্চলের বোলারদের মধ্যে এবাদত হোসেন সবচেয়ে সফল বোলার। ৫৮ রান খরচ করে উত্তরাঞ্চলের তিন ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন এই তরুণ। এছাড়া মোশাররফ হোসেন দুটি এবং আবু হায়দার ও তানভীর হায়দার নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

এর আগে সাদনাম (১০৭) ও মার্শাল আইয়ুবের (১৩২) জোড়া সেঞ্চুরি এবং মোশাররফ হোসেনের অপরাজিত ৮৩ রানের ওপর ভর করে ৫২৯ রান করে মধ্যাঞ্চল।

Print Friendly, PDF & Email