মেসি-রোনালদো যুগের অবসান, মদ্রিচের হাতে ব্যালন ডি’অর

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কপাঁচ বার করে এই পুরস্কার তুলে ধরে ১০ বছর নিজেদের করে নিয়েছেন লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। সেই এক দশকের আধিপত্যের অবসান ঘটিয়ে ২০১৮ সালের ব্যালন ডি’অর জয় করলেন রিয়াল মাদ্রিদের ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার লুকা মদ্রিচ।

সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) প্যারিসের স্থানীয় সময় সন্ধ্যা এক জাকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে বর্ষসেরা ফুটবলার হিসেবে মদ্রিচের নাম ঘোষণা করা হয়। বিশ্বসেরার সেরা তিনের তালিকায় সবাইকে অবাক করে দিয়ে বাদ পড়েন আর্জেন্টাইন তারকা ফুটবলার লিওনেল মেসি। আর পুরস্কার জয়ের পথে মদ্রিচ পেছনে ফেলেন রোনালদো ও অঁতোয়ান গ্রিজমানকে। বিশ্ব জুড়ে ক্রীড়া সাংবাদিকদের ভোটে ফরাসি সাময়িকী ‘ফ্রান্স ফুটবল’ এর দেওয়া পুরস্কারটি জয় করে নেন মদ্রিচ।

চলতি বছরের বর্ষসেরার সবকটি পুরস্কারই উঠেছে মদ্রিচের হাতে। এর আগে আগস্টে রোনালদো ও মিশরের মোহামেদ সালাহকে পেছনে ফেলে উয়েফার বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কারটিও নিজের করে নেন মদ্রিচ। এর ঠিক পরের মাসেই এই দুজনকেই পিছনে ফেলে ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ নির্বাচিত হন ৩৩ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার। এসব পুরস্কার জয়ের পর ব্যালন ডি’অর জয় অনুমিতই ছিল। বাকি ছিল শুধু ঘোষণার।

ক্রোয়েশয়ান এই ফুটবলারের গুরুত্বপূর্ণ অবদানেই গত মৌসুমে ইতিহাসের প্রথম ক্লাব হিসেবে টানা তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয় করে রিয়াল মাদ্রিদ। ক্লাবটির হয়ে গত মৌসুমে উয়েফা সুপার কাপ, স্প্যানিশ সুপার কাপ ও ক্লাব বিশ্বকাপ শিরোপাও তুলে ধরেন মদ্রিচ।

রাশিয়া বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ক্রোয়েশিয়াকে ফাইনালে তুলতে সামনে থেকেই অবদান রাখেন মদ্রিচ। জেতেন আসরের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বল’।

উল্লেখ্য, এর আগে ফিফার বর্ষসেরা ও ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীর ব্যালন ডি’অর পুরস্কার আলাদাভাবে দেওয়া হতো। তবে ২০১০ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ছয় বছর দুটি পুরস্কার এক সঙ্গে দেওয়া শুরু হয়। তবে ২০১৬ সাল থেকে আবারও তারা আলাদা হয়ে যায়।

Print Friendly, PDF & Email