রুদ্ধশ্বাস জয়ে সুপার সিক্সে মোহামেডান

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কটপ অর্ডার দারুণ শুরু এনে দেওয়ার পরও শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল মোহামেডান। বিকেএসপির বিপক্ষে হারতে বসা দলকে পথ দেখিয়েছে দশম উইকেট জুটি। কাজী অনিক ও সাকলাইন সজীবের দৃঢ়তায় নাটকীয় জয়ে সুপার সিক্স নিশ্চিত করেছে নাদিফ চৌধুরীর দল।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের একাদশ রাউন্ডে ১ উইকেটে জিতেছে মোহামেডান। ২৫০ রানের রানের লক্ষ্য এক বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় তারা।

জয়ের জন্য শেষ ওভারে মোহামেডানের প্রয়োজন ছিল ৯ রান। একটি করে চার হাঁকিয়ে অনিক ও সাকলাইন দলকে নিয়ে যান জয়ের বন্দরে।

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রান্তিক নওরোজের সঙ্গে ৪২ রানের উদ্বোধনী জুটিতে বিকেএসপিকে ভালো শুরু এনে এনে দেন ফাহাদ আহমেদ। দুই ওপেনার পারেননি ভালো শুরুটা বড় করতে।

সাবধানী ব্যাটিংয়ে ৯২ বলে পাঁচ চারে ৬০ রান করেন আমিনুল ইসলাম। তার সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে ৯৪ রান জুটি গড়া শামিম হোসেন ফিরেন দুটি করে ছক্কা ও চারে ৪৯ রান করে। আকবর আলীর ৩৫ বলে ৩৮ ও পারভেজ হোসেনের ২২ বলে ৩৮ রানের দুটি আক্রমণাত্মক ইনিংসে লড়াই করার মতো সংগ্রহ গড়ে বিকেএসপি।

মোহামেডানের রাহাতুল ফেরদৌস ৩ উইকেট নেন ৩৭ রানে।

রান তাড়ায় ইরফান শুক্কুরের সঙ্গে ৭৭ রানের জুটিতে দলকে ভালো শুরু এনে দেন লিটন দাস। পঞ্চাশ ছোঁয়ার পর বেশি দূর যেতে পারেননি এই তরুণ ওপেনার। ৫৭ বলে ৬ চারে ফিরে যান ৫৩ রান করে। ভালো শুরুটা বড় করতে পারেননি রকিবুল হাসানও।

মিডল অর্ডারে ছোবল দেন হাসান মুরাদ, দ্রুত ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ আশরাফুল ও নাদিফ চোধুরীকে। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে দলকে এগিয়ে নেন অভিষেক মিত্র। ৬৯ বলে তিন ছক্কা ও দুই চারে ৬৫ রান করা এই টপ অর্ডার ব্যাটম্যানকে মোহামেডানকে বড় একটা ধাক্কা দেন মুরাদ।

রাহাতুল ফেরদৌস ও সাকলাইনকে নিয়ে বাকিটা সারেন অনিক। তাদের দৃঢ়তায় এক মৌসুম পর সুপার সিক্সে ফিরে মোহামেডান।

বিকেএসপির তরুণ পেসার মুরাদ ৪ উইকেটে নেন ৩০ রানে। দুটি করে উইকেট নেন নৌশাদ ইকবাল ও তানজিম হাসান।

দায়িত্বশীল ইনিংসে দলকে পথ দেখানো অভিষেক জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

১১ ম্যাচে ষষ্ঠ জয়ে পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছে মোহামেডান। তাদের আগে সুপার সিক্স নিশ্চিত করে আবাহনী, লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ, প্রাইম দোলেশ্বর, প্রাইম ব্যাংক ও শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব।

তিন দলের রেলিগেশন লিগে বিকেএসপির সঙ্গী উত্তরা ও ব্রাদার্স ইউনিয়ন। এই লিগের সেরা দল টিকে থাকবে প্রিমিয়ার লিগে, অন্য দুই দল নেমে যাবে প্রথম বিভাগে।

ম্যান অব দা ম্যাচ: অভিষেক মিত্র

Print Friendly, PDF & Email