শনিবার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের আগে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কএগিয়ে আসছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের বিশ্বকাপ-পরীক্ষার দিনক্ষণ। ৬ জুন লাওসের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের মিশন বিশ্বকাপ।

প্রথম ম্যাচটি লাওসে, পরের ম্যাচটি ঢাকায় ১১ জুন। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে লাওসকে হারাতে পারলেই বাংলাদেশ টিকে থাকবে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দৌড়ে। হারলে আগামী চার বছর আর জুটবে না ফিফা-এএফসির ম্যাচ। পরীক্ষাটা কঠিনই।

 

লাওসকে হারিয়ে বিশ্বকাপের বাছাইয়ে টিকে থাকতে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের প্রচেষ্টারও কমতি নেই। বাফুফে জামাল ভূঁইয়াদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প করতে পাঠিয়েছে থাইল্যান্ড। সেখানে দুটি ম্যাচের ব্যবস্থা হয়েছে।

প্রথম ম্যাচে এয়ার ফোর্স ইউনাইটেড এফসির বিরুদ্ধে ১-১ গোলে ড্র করেছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচ শনিবার ব্যাংকক গ্লাস পাথুম ইউনাইটেড এফসির বিরুদ্ধে। ব্যাংকের থানিয়াবুরির লিও স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫ টায়।

বাংলাদেশ যে দিন থাই লিগ-২ এর দল এয়ার ফোর্স ইউনাইটেড এফসির বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচ ড্র করেছে একই দিন লাওস প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। নিঃসন্দেহে লাওসের প্রস্তুতি ম্যাচটিই বেশি ভালো হয়েছে। বাংলাদেশ যেখানে একটি ক্লাব দলের সঙ্গে ড্র করেছে সেখানে লাওস হারিয়েছে একটি জাতীয় দলকে।

তবে বাংলাদেশের ফুটবলাররা একটি জয় নিয়েই ব্যাংকক থেকে ধরতে চান লাওসগামী বিমান। ৩ জুন লাওস যাবে জেমি ডে’র শিষ্যরা। দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচের প্রতিপক্ষ ব্যাংকক গ্লাস পাথুম ইউনাইটেড সম্পর্কে বেশি ধারণা নেই বাংলাদেশ অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্যাংকক থেকে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘প্রতিপক্ষ সম্পর্কে তেমন ধারণা নেই আমাদের। দলটি সম্পর্কে আমরা আসলে কিছুই জানি না। আমাদের ভালো অনুশীলন হয়েছে। সবাই ভালো আছে। একটি ভালো ম্যাচই আশা করছি।’

আর দলের সিনিয়র খেলোয়াড় মামুনুল ইসলাম বলেন, ‘দুটি প্র্যাকটিস ম্যাচ আমাদের ভুলত্রুটি শোধরাতে সাহায্য করবে। আমাদের বিশ্বাস এই দুটি প্রস্তুতি ম্যাচের পর আমরা লাওসের বিরুদ্ধে ভালো ফলাফল করতে পারবো।’

Print Friendly, PDF & Email