শীর্ষস্থানে থাকতে মরিয়া অ্যান্ড্রি মারে, জকোভিচ

স্পোর্টস লাইফডেস্ক : এটিপি ট্যুর ফাইনালে শিরোপা জয়ের মাধ্যমে বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থেকেই বছর শেষ করতে আশাবাদী এন্ডি মারে ও নোভাক জকোভিচ। ইউরোপীয়ান জুনিয়র টুর্নামেন্টের মাধ্যমে ১৫ বছর আগে বন্ধুত্বপূর্ণ প্রতিদ্বন্দ্বীতা শুরু হয়েছিল এই দুই শীর্ষ তারকার মধ্যে যা এখনো চলছে। এখন দুজনের লড়াইটা অবশ্য কিছুটা ব্যতিক্রম। কোর্টের বাইরেও যা বিদ্যমান।

সম্প্রতি সার্বিয়ান তারকা জকোভিচের ১২২ সপ্তাহের রাজত্বকে শেষ করে দিয়ে এটিপি বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের মসনদে বসেছেন এন্ডি মারে। আর বছরের শেষ টুর্নামেন্টে দুই বন্ধু নিজেদের ছাড়িয়ে যাবার মিশনে একে অপরের মোকাবেলা করবেন। এই প্রথম বৃটিশ কোন খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের চূড়ায় আসীন হয়েছেন মারে। সে কারনেই সহজে তা হারাতে নারাজ এই স্কটিশ। অন্যদিকে দীর্ঘ সময়ের প্রিয় স্থানটি আবারো ফিরে পেতে মরিয়া জকো। জকোভিচের থেকে মাত্র ৪০৫ রেটিং পয়েন্ট এগিয়ে আছে মারে। লন্ডনের ও২ এরিনাতে জকোভিচের থেকে ভাল ফল করতে না পারলেই মারের শীর্ষস্থান হারাতে হবে।

আট শীর্ষ খেলোয়াড়ের এই টুর্নামেন্টে মারে ও জকোভিচ যেহেতু ভিন্ন ভিন্ন গ্রুপে লড়াইয়ে নামবেন সেহেতু সেমিফাইনালের আগে দুজনের দেখা হবার কোন সম্ভাবনাই নেই। আর যদি নিজেদের ৩৫তম মোকাবেলার ম্যাচটি ফাইনাল হয় তবে সেই ম্যাচের ফলাফলই শীর্ষস্থান নির্ধারণ করবে। সর্বশেষ ২০০১ সালে ট্যুর ফাইনালে লেটন হিউয়েট ও গুস্তাভো কুয়ের্তেনর মধ্যকার শেষ ম্যাচটি শীর্ষস্থান নির্ধারণী ছিল।

গত ১১ মাসে দূর্দান্ত ফর্মে থাকা মারে চলতি বছর দ্বিতীয়বারের মত উইম্বলডন জয় করা ছাড়াও অলিম্পিকের সিঙ্গেলসে দ্বিতীয় স্বর্ণ ছিনিয়ে নিয়েছেন। এছাড়া ব্যক্তিগত জীবনে কন্যা সন্তানে বাবা হয়েছে। এসব কিছুই মারের ভাগ্যকে সুপ্রসন্ন করেছে। আর তাই বিশ্বের শীর্ষ এই তারকা বলেছেন, কোর্টে এই বছরটা আমার ক্যারিয়ার সেরা ছিল। ধারবাহিকতা প্রশ্নে গত কয়েক মাস সেরা ছিল। এছাড়া কোর্টের বাইরেও আমি জীবনটা দারুন উপভোগ করছি। বাবা হয়ে আমার জীবনে অনেক বড় পরিবর্তন এসেছে। আমি যখন কোর্টে যাই তখন বাড়তি এটা আত্মবিশ্বাস আমার মধ্যে কাজ করে।

যদিও জকোভিচের সাথে এ পর্যন্ত ২৪টি ম্যাচে হেরেছেন মারে তারপরেও ট্যুর ফাইনালে অনেকেই মারেকে কিছুটা হলেও সার্বিয়ান তারকার চেয়ে এগিয়ে রাখছেন। জকোভিচও বিষয়টি নেমে নিয়ে বলেছেন, সে এবছর যা কিছু অর্জন করেছে তার জন্য প্রশংসা করতেই হয়। অবশ্যই এই মুহূর্তে সেই বিশ্বের এক নম্বর খেলোয়াড় এবং এটা তার প্রাপ্য ছিল। নি:সন্দেহে গত ছয় মাসে সেই বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়। এটা সে ধরে রাখতে পারে কিনা সেটা এখানে মূখ্য নয়। আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে দীর্ঘদিন এই পর্যায়ে খেলা চালিয়ে যাবার সুযোগ তার মধ্যে রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email