শ্বাসরুদ্ধকর জয়ে আইপিএলের রেকর্ড চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ক১ রানের নাটকীয় জয়ে আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হলো মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। রবিবারের ফাইনালে গতবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে তারা জিতেছে শেষ বলে। তাতে রেকর্ড চারবার এই শিরোপা জিতলো মুম্বাই। এর আগে তারা চ্যাম্পিয়ন হয় ২০১৩, ২০১৫ ও ২০১৭ সালে। সবচেয়ে বেশি শিরোপা জয়ে তারা তিনবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাইকে পেছনে ফেলেছে।

হায়দরাবাদে আগে ব্যাট করতে নেমে কিয়েরন পোলার্ডের ব্যাটে ৮ উইকেটে ১৪৯ রান করে মুম্বাই। এরপর শেন ওয়াটসনের দুরন্ত এক ইনিংসে জয়ের সম্ভাবনা জাগায় চেন্নাই। কিন্তু শেষ ওভারে আর পেরে ওঠেনি তারা। ২০ ওভারে ৭ উইকেটে চেন্নাই করে ১৪৮ রান।।

শেষ ওভারে ৯ রান দরকার ছিল চেন্নাইয়ের। ক্রিজে ওয়াটসনের সঙ্গে ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। কিন্তু ৪ রান দূরে থাকতে চতুর্থ বলে দুটি রান নিতে গিয়ে রানআউট হন ওয়াটসন। ৫৯ বলে ৮ চার ও ৪ ছয়ে ৮০ রান করেন অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান। নেমেই শারদুল ঠাকুর দুটি রান নিলে ম্যাচের উত্তেজনা গড়ায় শেষ বলে, দরকার ছিল ২ রান। কিন্তু লাসিথ মালিঙ্গার ইয়র্কারে শারদুল এলবিডাব্লিউ হলে শ্বাসরুদ্ধকর জয় পায় মুম্বাই।এর আগে কুইন্টন ডি কক (২৯) ও রোহিত শর্মার (১৫) উদ্বোধনী জুটির ৪৫ রানে দারুণ ‍শুরু করে মুম্বাই। এরপর ১০১ রানে ৫ উইকেট হারানো দলকে টেনে তোলেন হার্দিক পান্ডিয়া ও পোলার্ড। ৩৯ রানের জুটি গড়েন তারা। পান্ডিয়া ১৬ রানে আউট হওয়ার পর দ্রুত উইকেট হারায় মুম্বাই। তবে পোলার্ড ২৫ বলে তিনটি করে চার ও ছয়ে ৪১ রান করে স্কোরবোর্ডে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। শেষ ৫ ওভারে মুম্বাই করে ৪৭ রান।

লক্ষ্য বড় না হলেও ব্যাটিং ব্যর্থতায় বিপদে পড়েছিল চেন্নাই। অবশ্য একপ্রান্ত আগলে রেখে খেলতে থাকেন ওয়াটসন। ফাফ দু প্লেসি (২৬) ও ডোয়াইন ব্রাভো (১৫) ছাড়া আর কারও কাছ থেকে উপযুক্ত সঙ্গ পাননি তিনি। তারপরও তার ব্যাটে টানা দ্বিতীয় শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখছিল চেন্নাই। কিন্তু দুই বল আগে তার আউটে সেটা ভেঙে যায়।

৪ ওভারে ১৪ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন মুম্বাই পেসার জসপ্রীত বুমরাহ।এনিয়ে চারবার ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল চেন্নাই ও মুম্বাই। ২০১৩ ও ২০১৫ সালের পর টানা তৃতীয়বার শিরোপার লড়াইয়ে তাদের হারালো মুম্বাই। শীর্ষে থেকে লিগ পর্ব শেষ করার পর চ্যাম্পিয়ন হয়ে উচ্ছ্বসিত অধিনায়ক রোহিত, ‘আমরা ভালো খেলেছি। সেরা দুইয়ে থেকে প্লে অফে উঠতে পেরে খুব ভালো লেগেছিল। এই অর্জনে শুধু একাদশ নয়, পুরো দলকে কৃতিত্ব দিতে হবে- কোচিং স্টাফ থেকে খেলোয়াড়দের সবাইকে।’

এই আইপিএলের সবচেয়ে ভ্যালুয়েবল (সিরিজসেরা) খেলোয়াড় হয়েছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের আন্দ্রে রাসেল। সেরা স্ট্রাইক রেটের পুরস্কারও উঠেছে ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারের হাতে। সর্বোচ্চ ২৬ উইকেট নিয়ে পারপল ক্যাপ পেয়েছেন চেন্নাইয়ের স্পিনার ইমরান তাহির। সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ৬৯২ রান করে জিতেছেন অরেঞ্জ ক্যাপ। তার দল পেয়েছে ফেয়ার প্লে অ্যাওয়ার্ড। সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় হয়েছেন কলকাতার শুভমান গিল। 

Print Friendly, PDF & Email