সিলেটে জমেছে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে লড়াই

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কসিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন শেষে কোনো দলই পুরো স্বস্তিতে আছে তেমনটি বলা যাবে না। যদিও  জিম্বাবুয়ের পাঁচ উইকেট তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ।যেখানে ছিলেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ব্র্যান্ডন টেইলর, শেন উইলিয়ামস ও সিকান্দার রাজাদের মতো বড় নাম। দিন শেষে ৯১ ওভারে ২.৫৯ গড়ে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৩৬ রান করেছে সফরকারীরা। তবে প্রতিপক্ষের হয়ে অপরাজিত আছেন পুরোদস্তর ব্যাটসম্যান পিটার মুর ও রেগিস চাকাভা।

এর আগে শনিবার (০৩ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিং বেছে নেয় জিম্বাবুয়ে। এই ম্যাচ দিয়েই টেস্ট ভেন্যু হিসেবে অভিষেক হয়েছে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের।

আজকের ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট অভিষেক হয়েছে আরিফুল হক, নাজমুল ইসলাম অপুর। আর জিম্বাবুয়ের হয়ে টেস্ট অভিষেক হয়েছে ব্র্যান্ডন মাভুতার।

বাংলাদেশকে প্রথম উইকেটের স্বাদ পাইয়ে দেন তাইজুল ইসলাম। ওপেনার ব্রায়ান চ্যারিকে (১৩) বোল্ড করে ম্যাচে নিজের প্রথম উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। পরে জিম্বাবুয়ের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান ব্র্যান্ডন টেইলরকে (৬) নাজমুল হাসান শান্তর ক্যাচে পরিণত করেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম।

প্রথম সেশনের ১৭তম ওভারে বল করতে আসেন তাইজুল। ওই ওভারের দ্বিতীয় বলে ডিফেন্ড করতে গিয়ে শর্ট লেগে ক্যাচ তুলে দেন টেইলর। তার ব্যাটের কানায় লেগে বল সেখানে থাকা শান্তর হাতে জমা হয়। মাঠের আম্পায়ার থার্ড আম্পায়ারের সহায়তায় আউট দিলে নিজের দ্বিতীয় উইকেটের স্বাদ পান তাইজুল। দলীয় ৪৭ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

অধিনায়কের দায়িত্ব নিয়ে দারুণ ব্যাটিং করেন হ্যামিল্টন মাসাজাদজা। তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের অষ্টম হাফসেঞ্চুরিও। তবে মধ্যাহ্ন বিরতির পর আর টিকতে পারলেন না। অবু জায়েদ রাহির করা বলে এলবির ফাঁদে পড়েন জিম্বাবুয়ে দলনেতা। ১০৫ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৫২ রান করেন তিনি।

অভিষেক টেস্টে উইকেট নিয়ে রাঙান নাজমুল ইসলাম অপু। জিম্বাবুয়ের ভরসা ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজার স্ট্যাম্প উপড়ে সাদা পোশাকের ক্যারিয়ারে প্রথম উইকেটের স্বাদ পান এই বাঁহাতি স্পিনার। ব্যক্তিগত ১৯ রানে রাজা ফিরলে সফরকারীরা ১২৯ রানে ৪ উইকেট হারায়।

শেন উইলিয়ামসকে বিদায় করে বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দেন নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসানে ইনজুরিতে এই ম্যাচে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পঞ্চম উইকেট জুটিতে উইলিয়ামস পিটার মুরের সঙ্গে ৭২ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। তবে ব্যক্তিগত ৮৮ রানে মেহেদি হাসান মিরাজের ক্যাচে এই বাঁহাতিকে ফেরান রিয়াদ। ১৭৩ বলে ৯টি চারে নিজের ইনিংস সাজান উইলিয়ামস।

দিনের বাকিটা সময় অবশ্য জিম্বাবুয়ের আর কোনো বিপদ হতে দেননি পিটার মুর (৩৭) ও রেগিস চাকাভা (২০)। টাইগার বোলারদের দেখেশুনে খেলে দিন শেষে করেন।

স্বাগতিক বোলারদের মধ্যে তাইজুল দুটি উইকেট পান। এছাড়া রাহি, নাজমুল ও রিয়াদ একটি করে উইকেট নেন।

Print Friendly, PDF & Email