সিলেট টেস্ট জয়ের জন্য বাংলাদেশের আরো দরকার ২৯৫রান

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কটেস্ট ক্রিকেটে দিন বা কোনো সেশনের শেষ দিকে উইকেট হারানোটা এক প্রকার নিয়মে পরিণত করে ফেলেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চলতি সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনের শেষ বিকেলে কোনো উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ।

জিম্বাবুয়ের ছুড়ে দেয়া ৩২১ রানের লক্ষ্যে বিনা উইকেটে ২৬ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে বাংলাদেশ। আলো স্বল্পতার কারণে এদিন নির্ধারিত সময়ের ৩৭ মিনিট আগেই বন্ধ করে দেয়া হয় খেলা। তখনো বাকি ছিলো দিনের ১৩.৫ ওভার। 

 

এর আগে জিম্বাবুয়েকে দ্বিতীয় ইনিংসে ১৮১ রানেই থামিয়ে দেয় বাংলাদেশ। ফলে ম্যাচ জিততে স্বাগতিকদের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩২১ রানের। ম্যাচে দ্বিতীয় ও ক্যারিয়ারে পঞ্চমবারের মতো পাঁচ উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। দুই ইনিংস মিলিয়ে ১১ উইকেট নিয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ টেস্ট ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় তিন নম্বরে উঠে গিয়েছেন তাইজুল। 

তাইজুল ৫ উইকেট নিলেও দিনের তিন সেশনে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। প্রথম সেশনের শুরুতেই ওপেনার ব্রায়ান চারিকে আউট করে উইকেটের সূচনা করেন মিরাজ। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই তিনি ফেরান হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে। আর তৃতীয় সেশনের শুরুতে তিনি ফিরিয়ে দেন ওয়েলিংটন মাসাকাদজাকে।

চা বিরতির আগ পর্যন্ত (দ্বিতীয় সেশন) ৬ উইকেট হারিয়ে জিম্বাবুয়ের রান ছিল ১৬৫। তখন জিম্বাবুয়ের লিড দাঁড়িয়েছিল ৩০৪ রান। বাংলাদেশের জন্য যা রীতিমত বিশাল হিমালয় পাহাড়ের সমান। শেষ পর্যন্ত ১৮১ রানেই অলআউট হলো মাসাকাদজারা।

তৃতীয় সেশন শুরুর পরপরই ব্রেক থ্রু এনে দিতে পারলেন মেহেদী মিরাজ। ওয়েলিংটন মাসাকাদজাকে সাজঘরে ফেরান তিনি। ৬০ বলে ১৭ রান করেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজার ভাই। তার আগেই দ্বিতীয় সেশনে অবশ্য তাইজুল ঘূর্ণিতে দ্রুত উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। শন উইলিয়ামস, পিটার মুরকে পরপর দুই বলে ফিরিয়ে দেন তিনি। পরের ওভারের প্রথম বলে সিকান্দার রাজা তাইজুলের হ্যাটট্রিক ঠেকিয়ে দিলেও দুই বল পর ঠিকই সেই সিকান্দারকে বোল্ড করেন বাংলাদেশের এই স্পিনার।

সিকান্দার রাজার উইকেট নেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাংলাদেশের চতুর্থ বোলার হিসেবে টেস্টে এক ম্যাচে ১০ উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব দেখান তাইজুল। সে সঙ্গে মাশরাফিকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় তিন নম্বরে চলে আসেন তিনি।

Masakadza

 

Print Friendly, PDF & Email