ভারোত্তোলন অ্যাডহক কমিটি থেকে আরো এক গুরুত্বপূর্ণ সদস্যের পদত্যাগ

হুমায়ুন সম্রাট :  গত ৯জুন ২০১৬ জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ আইন ১৯৭৪ (হালনাগাদ সংশোধিত)-এর ২০এ(বি) ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশনের নির্বাচিত কমিটি বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন না দিয়ে বিতর্কিত ২৪ সদস্যের অ্যাডহক কমিটি গঠন করে।

গত ৯জুন থেকে ছয়মাস মেয়াদ চললেও এখন পর্যন্ত এনএসসির তৈরী অ্যাডহক কমিটি তেমন কিছুই করতে পারেনি। এই ছয় মাসে একাধিক আন্তর্জাতিক প্রতিয়োগিতায়ও ঠিকমত দল পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছে। বাইরে দল পাঠানো তো দুরের কথা অ্যাডহক কমিটির কর্তারা একের পর এক জন্ম দিয়েছেন নানা বিতর্কের।

পারেননি সময়মত নির্বাচন আয়োজন করতে। যার ফলে এশিয়ান ওয়েটলিফটিং ফেডারেশন তাদের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশনকে তাদের আয়োজিত সকল আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বর্তমান কমিটির নানা বিতর্কিত কর্মকান্ড এবং অযোগ্যতার দরুণ কমিটি থেকে গত ২অক্টোবর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবর পদত্যাগ পত্র জমা দিনে জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত (ভারোত্তোলন) খেলোয়াড় ও খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ ও সেনাবাহিনীর সাবেক লিফটার ও কুষ্টিয়া অণির্বান ভারোত্তোলন ক্লাবের কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান।

তাদের পথ অনুসরণ করে এবার অ্যাডহক কমিটি থেকে পদত্যাগ করলেন দেশের ভারোত্তোলনে বিশেষ অবদান রাখা ক্রীড়াবিদ, সংগঠক ও খেলোয়াড় তৈরীর কারিগর মোয়াজ্জেম জিমন্যাস্টিক্স ক্লাব, মেহেরপুর এর প্রতিষ্ঠাতা মো. মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি গত ৭ নভেম্বর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবর অ্যাডহক কমিটি থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন।

মোবাইল ফোনে মো. মোয়াজ্জেম হোসেন এর কাছে পদত্যাগের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি মেহেরেপুর জেলার গাংনী থানাতে মোয়াজ্জেম জিমন্যাস্টিক্স ক্লাবের মাধ্যমে অনেক তারকা ভারোত্তোলকের জন্ম দিয়েছি। হামিদুল ইসলাম ও একরামুল এরমত খেলোয়াড় তৈরী হয়েছে আমার হাতে। তাছাড়া আমার ক্লাব থেকে তৈরী শতাধিক খেলোয়াড় দেশের বিভিন্ন সার্ভিসেস দলে কর্মরত আছেন। এবং অনেকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পদক অর্জন করে দেশের সুনাম উজ্জল করেছে।

বর্তমানে এই অ্যাডহক কমিটির সদস্যরা এই খেলাকে সামনে এগিয়ে নেয়া তো দুরের কথা এদের কারণে গত ছয়মাসে অনেক পিছিয়ে পরেছে। ফেডারেশনের গঠনতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে নির্বাচন দিয়ে বর্তমান অচলাবস্থার সমাধান করে পূর্বের ন্যায় একটি সর্বগ্রহনযোগ্য নির্বাচিত কমিটির মাধ্যমে ভারোত্তোলন ফেডারেশনের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহন করবে এমনটি আশা করি। যদিও এনএসসি নির্বাচন আয়োজনের জন্য অ্যাডহক কমিটি বলেছে। কিন্তু তারা কি করছে তা বুঝতে পারছি না।

অ্যাডহক কমিটিতে ছিলাম কিন্তু এই কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও প্রেসিডেন্ট যা করছে তাতে এমন কমিটিতে থাকা আমার পক্ষে অসম্মানজনক। তাই পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছি। আমি চাই ভাল এবং যোগ্য ব্যক্তিদের সম্বনয়ে একটি গ্রহনযোগ্য কমিটি তৈরী করা হোক। যারা ভারোত্তোলনকে এগিয়ে নিতে পারবে সেই সাথে দেশকে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে পদক এনে দিতে পারবে।

আপনার আগে আরো দুজন পদত্যাগ করেছেন আরও কি কেউ পদত্যাগ করতে পারে বলে ধারনা করছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে, অভিজ্ঞ এ সংগঠক ইঙ্গিত দেন অন্যরা যেভাবে চলছে তা পদত্যাগের মতই। ফেডারেশন চালান সভাপতি ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। সাধারণ সম্পাদকতো বলতে গেলে ফেডারেশনে আসেনই না। মাঝে মাঝে শুনতে পায় নিজেদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হতে যায়। তাহলে এরা কিভাবে ফেডারেশন চালাবেন? আরো অনেকেই পদত্যাগ করলে অবাক হবার কিছুই থাকবে না।

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার