সোনা জিতেই ব্রাজিলের অধিনায়কত্ব ছাড়লেন নেইমার!

স্পোর্টস লাইফডেস্ক : এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্ম বয়ে বেড়ানো হতাশা ঘুচিয়েছেন। ব্রাজিলের অলিম্পিক ফুটবলের অধরা স্বপ্ন পূরণ করেছেন। নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। ব্রাজিলের ফুটবলের এই নতুন ইতিহাস লিখেই জাতীয় দলের অধিনায়কের পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে দিলেন নেইমার! মারাকানা স্টেডিয়ামে গেলো রাতে পেনাল্টি শুটআউটে ৫-৪ গোলে জার্মানিকে হারিয়ে ফুটবলে অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন হয়েছে নেইমারের ব্রাজিল। প্রথমবারের মতো। এবং তারপরই নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন ২৪ বছরের নেইমার।

“আজ আমি চ্যাম্পিয়ন হলাম। এবং নেতৃত্বের আর্মব্যান্ডটাও হস্তান্তর করছি।” পেনাল্টি শুটআউটে জয়সূচক গোল করে দেশকে সোনা জেতানো নেইমার আনন্দ-উৎসবের পর জানিয়েছেন, “আমি অনেক সম্মান ও ভালোবাসা পেয়েছি। অধিনায়ক হওয়াটা এক সম্মানের ব্যাপার। কিন্তু আজ থেকে আমি আর অধিনায়ক নই।”

ফাইনালে ৭৮ হাজার ঘরের দর্শকের সামনে ব্রাজিলকে লিড এনে দিয়েছিলেন নেইমার। ২৪ বছরের বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড ২৭ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে অসাধারণ গোল করেন। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে জার্মানি সমতা আনে তাদের অধিনায় ম্যাক্স মেয়ারের গোলে। ১২০ মিনিটের খেলা ১-১ এ অমিমাংশিত থাকার পর টাইব্রেক শুরু। স্নায়ুক্ষয়ী লড়াই প্রথম চার শটে দুই দলই গোল করে। এরপর পিটারসেনের শট রুখে দেন ব্রাজিলের গোলরক্ষক ওয়েভারটন। নেইমার গোল করলেই সোনা ব্রাজিলের! এবং তিনি গোল করেই ৫বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে প্রথমবারের মতো অলিম্পিক ফুটবলের সোনা জেতানোর উতসবে মাতালেন।

কোপা আমেরিকায় নেইমার খেলেননি অলিম্পিকে খেলবেন বলে। মিশন সমাপ্ত। তবে কোপার প্রথম রাউন্ডে হেরে বিদায় নেওয়ার পর কোচ দুঙ্গা চাকরি হারান। নতুন কোচ তিতে সেপ্টেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব দিয়ে তার যুগ শুরু করবেন। নেইমার জানিয়েছেন, “আমি তিতেকে খবর পাঠিয়েছি যে তিনি আরেকজন অধিনায়ক বেছে নিতে পারেন।” নেইমার অবশ্য অলিম্পিক সোনা জিতে স্বপ্ন পূরণের পাশাপাশি সমালোচকদের জবাব দেওয়ার ইঙ্গিতও রাখলেন, “আমার জীবনের সেরা ঘটনার একটি এটি। এখন তারা (সমালোচকরা) যা বলেছে তা তাদেরই গিলে ফেলতে হবে।”

দুঙ্গা অধিনায়ক করেছিলেন নেইমারকে। তিতে যুগের সূচনার আগে নেইমার দায়িত্ব ছাড়লেন। কিন্তু তিতে যদি তাকে নেতৃত্ব ধরে রাখার প্রস্তাব দেন? সেটা পরের ব্যাপার। ব্রাজিলের অলিম্পিক কোচ রোজেরিও মিকালে নেইমারের পদত্যাগের সিদ্ধান্তকে ‘মহৎ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। “এই আচরণ মহৎ। নেইমার তিতের ওপর সব ছেড়ে দিল।” মিকালে বলেছেন, “এই আলোচনা আমাদের মধ্যে আগে হলেও প্রকাশ্যে আনিনি। আমি তাকে অধিনায়ক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। দলে অধিনায়ক হওয়ার জন্য সেরা মানুষটাই সে। নেইমারের সিদ্ধান্তে তার পরিণত হওয়ার ব্যাপারটি বোঝা যায়। তাকে নিয়ে সর্বোচ্চ মুগ্ধতা আমার।”

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার