হৃতিককে সমুদ্রজয়ী অলিম্পিক কন্যা উশরার ধন্যবাদ

স্পোর্টস লাইফডেস্ক : সাঁতরে সমুদ্র জয় করা উশরা মারদানি রিও অলিম্পিকে সবার হৃদয়ও জিতেছেন। পদক জেতেননি তাতে কি। উশরার বিখ্যাত সমুদ্র সাঁতারের ঢেউ এসে লেগেছিল বলিউডেও। হৃতিক রোশন তার মুগ্ধতা প্রকাশ করেছিলেন টুইট করে। ১৮ বছরের শরণার্থী উশরা সেই টুইটের জবাবে এবার টুইট করে ধন্যবাদ জানালেন হৃতিককে।

উশরার দেশ সিরিয়া। কিন্তু এখন তার দেশ নেই কোনো। এই প্রথম অলিম্পিকে এর বিশ্ব সংস্থা আইওসি ১০ সদস্যের শরণার্থী দলকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ করে দিয়েছে। তাদেরই একজন উশরা। দুটি ইভেন্টে অংশ নিয়েছেন। তার কথা জেনেই শরণার্থী দলটির সমর্থক হয়ে যান হৃতিক। বলিউড হার্টথ্রব লিখেছিলেন, “আজ রাতে আমি উশরার জন্য গলা ফাটাবো। সত্যিকারের জীবনের হিরো সে। সাঁতার দিয়ে মানুষের জীবন বাঁচিয়েছে।” দিন কয়েক দেরি হলো উশরার। কিন্তু এই তরুণী কৃতজ্ঞতার সাথে ধন্যবাদ জানালেন হৃতিককে, “হৃতিক।

শরণার্থী দলকে সমর্থন দেওয়ায় আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আপনার মতো দারুণ জনপ্রিয় অভিনেতার সমর্থন আমাদের জন্য অনেক বড় কিছু।” উশরাকে বলা হয় সমুদ্রজয়ী কন্যা। এই তরুণী দেশের সেরা সাঁতারু ছিলেন একসময়। অংশ নেন ২০১২ সালের ফিনা বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপেও। সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হলে দেশ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় তাঁর পরিবার।

লেবানন হয়ে তুরস্কে এসে সেখান থেকে মোটরচালিত রাবারের ডিঙিতে করে ইজিয়ান সাগর পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করেন তাঁরা। মাঝসাগরে ডিঙির মোটর নষ্ট হয়ে গেলে চার ঘণ্টা সাঁতরে সেই ডিঙি ঠেলেছিলেন মারদিনি। নিজে বাঁচার সাথে বীরত্বের সাথে বাঁচিয়েছিলেন ডিঙিতে থাকা অন্যদেরও। এখন জার্মানি তার ঠিকানা। 

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার