আরও বেশি টেস্ট খেলার জোরালো দাবি

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক অ্যালিস্টার কুক অবাক হয়ে গিয়েছিলেন যখন তাকে বলা হয়েছিল ১৫ মাস পর টেস্ট খেলতে নামছে বাংলাদেশ! তাও দুটি মাত্র ম্যাচ। এই ১০ মাসেই ইংলিশরা খেলেছে ১৫টি টেস্ট। বাকি দুই মাসে সব মিলিয়ে ১৭টি টেস্ট খেলবে তারা এই বছর। আর চলতি বছরে বাংলাদেশের ভাগ্যে জুটল মাত্র দুটি টেস্ট!

এবারের পুরো সিরিজে বারবার আলোচিত হয়েছে বিষয়টি। এমন বিরতিতে বারবার পড়ে বাংলাদেশ। গতকাল ম্যাচ শেষে মাইক আর্থারটনও প্রশ্নটা করলেন। জবাবে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিক একরকম আকুতিই জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশকে যেন আরও বেশি টেস্ট খেলার সুযোগ দেওয়া হয়।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশ বদলে যাওয়া এক দল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই ঐতিহাসিক জয়ের পরও টেস্টে বাংলাদেশের দুর্বলতা অস্বীকার করার উপায় তো নেই। তবে বাংলাদেশ খেলতেই নামে এত দীর্ঘ বিরতির পর, এক সিরিজে খেলোয়াড়েরা যা শেখেন, পরের সিরিজ আসতে আসতেই তো ভুলে যান।

মুশফিক বললেন, আমরা ধীরে ধীরে টেস্টেও নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছি। তবে আরও বেশি টেস্ট খেলতে পারলে আরও বেশি বেশি ভালো ফল তো অবশ্যই আসত। আশা করি, আইসিসি ও অন্যান্য ক্রিকেট বোর্ডগুলো আমাদের বিপক্ষে বেশি করে খেলবে।

মুশফিকের নিজের এটি ছিল ৫০তম টেস্ট। ব্যক্তিগত পারফরমেন্সে মুহূর্তটা স্মরণীয় করে রাখতে না পারলেও দলীয় সাফল্যে সেই হতাশা অবশ্যই মুছে গেছে তার। কিন্তু মুশফিকের এই দুঃখ কী করে মুছবে, ৫০টি টেস্ট ম্যাচ খেলতে ১১ বছর সময় লাগল তার। দলের বাকি সিনিয়র ক্রিকেটারদেরও খুব বেশি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা নেই।

সাকিব আর কুকের আন্তর্জাতিক অভিষেক প্রায়ই কাছাকাছি সময়। দুজনই আন্তর্জাতিক আঙিনায় পা রেখেছেন ২০০৬ সালে। এই ১০ বছরে কুক খেলেছেন ১৩৩ টেস্ট, সাকিব সেখানে ৪২টি! এমনকি ২০১২ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট অভিষেক হওয়া জো রুটও সাকিবের চেয়ে বেশি টেস্ট খেলেছেন, ৪৬টি।

তামিম প্রায়ই আফসোস করেন, অন্য দলের মতো সুযোগ পেলে এত দিন ৮০-৯০ টেস্ট খেলে ফেলতেন। তাঁর রানটাও হয়তো দ্বিগুণ হতো। এমনও হয়েছে, বাংলাদেশের কোনো খেলোয়াড় দুর্দান্ত ফর্মে থেকে কোনো সিরিজ শেষ করলেন। পরের টেস্ট সিরিজটা খেলতে খেলতে ফর্মই চলে গেল তাঁর।

তামিমই যেমন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস ও ওল্ড ট্রাফোর্ডে টানা সেঞ্চুরির সেই সিরিজটার ১৪ মাস পর খেলেছেন আরেক টেস্ট সিরিজ! এ বছর এখনো টেস্টই খেলেনি বাংলাদেশ। বছরের শেষ দিকে এসে দুটি টেস্ট খেলছে। ২০১২ সালেও এমন মাত্র দু’টি টেস্ট খেলছিল বাংলাদেশ পুরো বছরে।

Print Friendly, PDF & Email