আরচ্যারী ডিসিপ্লিনের প্রতিযোগিতা সমাপ্ত

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক বাংলাদেশ যুব গেমস-২০১৮ তে অন্তর্ভুক্ত আরচ্যারী ডিসিপ্লিনের খেলা শেষ হয়েছে আজ সোমবার (১২মার্চ)। গাজীপুরের টঙ্গিস্থ শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে দুই দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতার শেষ দিনে রিকার্ভ তরুন এককে স্বর্ণ জিতে নেয় চট্টগ্রাম বিভাগের চাঁদপুর জেলার বিকেএসপির ছাত্র মিশাদ প্রধান। রৌপ্য পেয়েছে রাজশাহী বিভাগের তাওহীদ এবং ব্রোঞ্জ পান চট্টগ্রাম বিভাগের তালহা জুবায়ের তানভীর। 

আর তরুনীদের এককে স্বর্ণ পদক লাভ করেন রাজশাহী বিভাগের বিকেএসপির ছাত্রী রাবেয়া খাতুন। রৌপ্য পেয়েছে একই বিভাগের রাবেয়া আক্তার শাপলা আর ব্রোঞ্জ জিতেছে খুলনা বিভাগের ইতি খাতুন।

টিম মিক্স ইভেন্টে স্বর্ণ জিতেছে রাজশাহী বিভাগের রাদিয়া আক্তার শাপলা ও তাওহিদ। রৌপ্য পদক পেয়েছে ঢাকা বিভাগের অবনি ওসমান ও ইব্রাহিম শেখ। আর ব্রোঞ্জ পেয়েছে খুলনা বিভাগের ইতি খাতুন ও আফজাল হোসেন।

রিকার্ভ তরুন টিম ইভেন্টে স্বর্ণ পেয়েছে ঢাকা বিভাগের ইব্রাহিম শেখ, সাকিব ও আশরাফ। রৌপ্য পেয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগের নাইমুর রহমান, প্রদ্বীপ্ত চাকমা ও মিশাদ প্রধান। আর ব্রোঞ্জ পেয়েছে খুলনা বিভাগের আফজাল হোসেন, শাহরিয়ার আরিফ ও রহমান মির্জা। 

রিকার্ভ তরুনী টিম ইভেন্টে স্বর্ণ জিতেছে রাজশাহী বিভাগের রাদিয়া আক্তার শাপলা, রাবেয়া খাতুন ও হুমাইরা। রৌপ্য পেয়েছে রংপুর বিভাগের জেরিন তাসনিম, দিয়া সিদ্দিক ও পুজা রায়। এছাড়া ব্রোঞ্জ পেয়েছে খুলনা বিভাগের ইতি খাতুন, আঁখি  খাতুন ও সোনিয়া আক্তার।

তরুন এককে স্বর্ণ জয়ী মিশাদ প্রধান জানান, জীবনে প্রথম গোল্ড মেডেল জিতলাম। কি যে খুশি লাগছে ভাষায় বোঝাতে পারবো না। আমার স্বপ্ন ভবিষ্যতে আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় হবো। এবং দেশের পতাকা অনেক দুর পর্যন্ত নিয়ে যেতে চাই।  

আর তরুনী এককে স্বর্ণ জয়ী রাবেয়া খাতুন বলেন, এর আগে ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছি কিন্তু জীবনে যুব গেমসের মাধ্যমে প্রথম স্বর্ণ পদক পেলাম আমি খুবই আনন্দীত। ভবিষ্যতে এই ধারাটা অব্যাহত রাখতে চাই। আর আগামীতে বড় খেলোয়াড় হওয়ার মধ্য দিয়ে দেশের জন্য কিছু করতে চাই।

উল্লেখ্য রিকার্ভ তরুন-তরুনী একক, দলীয় ও মিক্স ইভেন্টে ৭টি বিভাগ হতে ২৫জন তরুন ও ২২জন তরুনী মোট ৪৭জন আর্চার প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করে।

বিকেলে খেলা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের উপমহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু।  

Print Friendly, PDF & Email