আয়াক্সের বিপক্ষে অবিশ্বাস্য ম্যাচে চেলসির ড্র

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কএ ম্যাচকে অবিশ্বাস্য না বললে ভুলই হবে। মোট গোল ৮টি, দুটি লাল কার্ড, দুটি আত্মঘাতী গোল। আবার ৪-১ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়া চেলসি অসাধারণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ পর্যন্ত ৪-৪ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে এ ম্যাচটি স্মরণীয় হয়েই থাকবে।

মঙ্গলবার রাতে ঘরের মাঠ স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের দল আয়াক্সকে আতিথেয়তা জানায় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের দল চেলসি। আগের লেগে ডাচ দলটির ঘরের মাঠে ১-০ গোলে জেতা ব্লুজরা এবার স্বস্তির ড্র করলো।

এদিন শুরুটা ভুল দিয়েই করে চেলসি। খেলা দুই মিনিটে আত্মঘাতী গোল করে আয়াক্সকে এগিয়ে দেন ট্যামি আব্রাহাম। তবে দুই মিনিট পরেই জর্জিনহোর পেনাল্টি থেকে পাওয়া গোলে সমতায় ফেরে চেলসি।

২০তম ফের লিড পায় আয়াক্স। কুইনসি প্রোমেসের গোলে এবার ব্যবধান ২-১ করে দলটি। আর ৩৫ মিনিটে নিজ গোলরক্ষক কেপা আরিজাবালাগার আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান আরও বাড়ায় আয়াক্স। হাকিমের ক্রস থেকে আসা বল সেভ করতে গেলে, লাইন মিস করে বল ক্রসবারে লেগে তার মুখে লেগে গোল হয়।

বিরতির পর ৫৫ মিনিটে দনি ফন দে বেক গোল করে আয়াক্সকে ৪-১ এগিয়ে দেন। কিন্তু আট মিনিট পর ব্যবধান কমান চেলসি সিজার আসপিলিকুয়েতা।

তবে কিছুক্ষণ পর দুই মিনিটের ব্যবধানে আয়াক্সের দুই ফুটবলার লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়লে ৯ জনের দলে পরিণত হয় ডাচরা। আব্রাহামকে ফাউল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন ডেলে ব্লিন্ড। আর ডি-বক্সে হ্যান্ডবল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন ইয়োয়েল ফেল্টমান। সেইসঙ্গে পেনাল্টি পাওয়া চেলসি সেখান থেকে গোল করে ব্যবধান ৪-৩ করে। জোড়া গোল পূর্ণ হয় জর্জিনহোর।

আয়াক্সের দুই খেলোয়াড় না থাকার ফায়দা ওঠায় চেলসি। ৭৪তম মিনিটে জুমার হেড ক্রসবারে লেগে ফিরে আসলে সেখান থেকে শট করে গোল করেন রিস জেমস। আর ৪-৪ গোলের স্বস্তির ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়ে চেলসি।

এ ম্যাচ হেরেও অবশ্য শীর্ষে আছে আয়াক্স। সমান ৭ করে পয়েন্ট নিয়ে যথাক্রমে প্রথম তিন স্থানে আছে আয়াক্স, চেলসি ও ভালেন্সিয়া। লিলের পয়েন্ট ১। গ্রুপের আরেক ম্যাচে লিলকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে ভালেন্সিয়া।

Print Friendly, PDF & Email