একই ইভেন্টে একসঙ্গে সোনা পেলেন দুজন!

স্পোর্টস লাইফডেস্ক : একটু অদ্ভুত ব্যাপারই বটে। পুরস্কার মঞ্চে সোনার পদক গলায় একই সঙ্গে দাঁড়িয়ে আছেন দুজন! মনে হতেই পারে, হয়তো কোনো ভুল হয়েছে। সোনা তো একজনেরই জেতার কথা, একজনকে কি ভুল করে সোনার পদক দেওয়া হলো? কিন্তু না।

মেয়েদের সাঁতারের ১০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে সেটিই হয়েছে আজ। সাঁতারের ভাষায় যেটিকে ‘ডেড ফিনিশ’ বলা হয়, সেটিই করেছেন কানাডার পেনি ওলেকসিয়াক ও যুক্তরাষ্ট্রের সিমোনে ম্যানুয়েলে। দুজনেই ৫২.৭০ সেকেন্ড সময় নিয়েছেন, সোনার পদকও পেয়েছেন দুজনেই

সাঁতারে অবশ্য ব্যাপারটা নতুন কিছু নয়। ২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিকেও এ রকম একটা ঘটনা হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের গ্যারি হল জুনিয়র ও অ্যান্থনি আরভিন, দুজনেই ঠিক একই সময় নিয়ে সাঁতার শেষ করেছিলেন। সোনাও পেয়েছিলেন দুজনই।

তবে পেনি ও সিমোনের কীর্তিটা একটু অন্যরকম হয়ে যাচ্ছে আরেকটা কারণেও। মেয়েদের ১০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে দুজনের কেউই ফেবারিট ছিলেন না। অস্ট্রেলিয়ার কেট ক্যাম্পবেল এই ইভেন্টে দুই মাস আগেই বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলেন। শুরুটাও ভালো করেছিলেন ক্যাম্পবেল, কিন্তু ৫০ মিটার শেষে অদ্ভুতভাবে পিছিয়ে পড়তে শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত ছয়ে থেকে সাঁতার শেষ করেছেন। সুইডেনের ১০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে সোনা জয়ী সারা শ্রস্টম জিতেছেন ব্রোঞ্জ।

১৬ বছর বয়সী পেনি ১৯৯২ সালের পর কানাডার প্রথম সাঁতারু হিসেবে অলিম্পিকে সোনা জিতলেন। আর ২০ বছর বয়সী সিমোনের কীর্তিটা আরও বড়। প্রথম আফ্রো-আমেরিকান মেয়ে হিসেবে সাঁতারে ব্যক্তিগত সোনা জিতেছেন সিমোনে।

Print Friendly, PDF & Email