একদিন পেছালো বাংলাদেশ যুব গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক বাংলাদেশ যুব গেমস ২০১৮’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান এক দিন পিছিয়ে গেছে। আগামী ৯ মার্চের পরিবর্তে আগামী ১০ মার্চ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন ( বিওএ)। 

আগামী ৭ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠেয় এফএফসি কাপ  ফুটবল প্লে অফ ‘ই’ গ্রুপে ঢাকা আবাহনী বনাম মালদ্বীপের নিউ রেডিয়েন্টের মধ্যে ম্যাচ শেষ হওয়ার পর মাত্র ১ দিনের মধ্যে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মঞ্চ স্থাপন এবং মঞ্চ সজ্জার কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব নয় বলে ৯ মার্চের পরিবর্তে ১০ মার্চ বাংলাদেশ যুব গেমসের বর্নাঢ্য উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চূড়ান্ত করেছে বিওএ। বাংলাদেশ যুব গেমসের উদ্বোধন করবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

জাতীয় সঙ্গীত দিয়ে শুরু হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি। বেজে উঠবে গেমসের থিম সং, মাসকট তেজস্বী হবে উম্মোচিত। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে আকর্ষনীয় করতে লেজার শো, আতশবাজি ছাড়াও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থাকছে বাংলাদেশের খ্যাতিমান সঙ্গীত তারকাদের অংশগ্রহনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। স্টেডিয়ামের ২টি স্থায়ী জায়ান্ট স্ত্রীন এবং অস্থায়ীভাবে ৬টি এলইডি বোর্ডে বাংলাদেশ যুব গেমসের জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ের উপর হাইলাইটস ভেসে উঠবে।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, উনসত্তরের গণ অভ্যুত্থান, ঐতিহাসিক ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ, মহান মুক্তিযুদ্ধকে ফুটিয়ে তুলবে পারফরমাররা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনকারী ৮টি বিভাগীয় ক্রীড়া দল সমূহের প্রায় ৩ হাজার ক্রীড়াবিদ এবং অফিসিয়াল অংশ নিবে মার্চ পাস্টে। 

এদিকে বাংলাদেশ যুব গেমসের চূড়ান্ত পর্বে ডিসিপ্লিন সংখ্যা ২১টি নির্ধারিত হয়েছে। যুক্ত হয়েছে স্কোয়াশ।  তবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগেই মাঠে গড়াবে ফুটবল। ফুটবলে প্রথম পর্বের খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হবে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে। সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। বাংলাদেশ যুব গেমসের চূড়ান্ত পর্বে স্বর্ন, রৌপ্য, ব্রোঞ্জ পদকের পাশাপাশি দলগত ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন এবং রানার্স আপ ট্রফি দেয়া হবে।

পদক তালিকায় সেরা বিভাগ পাবে বিশেষ ট্রফি। বাংলাদেশ যুব গেমসের নির্ধারিত ২১ টি ডিসিপ্লিনে না থাকায়  গেমসের সমাপনী দিনে হাতিরঝিলে রোইং প্রতিযোগিতা আয়োজনের সিদ্ধান্ত অপরিবর্তিত থাকছে। 

Print Friendly, PDF & Email