কুকদের যত চিন্তা কন্ডিশন নিয়ে!

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক ওয়ানডে সিরিজের মতো টেস্ট সিরিজেও ইংলিশ শিবিরে ঘুড়ে ফিরে আসছে কন্ডিশনের কথা। যদিও বাংলাদেশের কন্ডিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ওয়ানডে সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নিয়েছে ইংলিশরা। আর কাল বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

এখানেও সফরকারীদের সামনে বড় বাধা কন্ডিশন! বুধবার ইংলিশ অধিনায়ক আলিস্টার কুক সেই প্রসঙ্গটি টেনে বলেছেন, ‘বাংলাদেশ গত কয়েক বছর ধরে খুব বেশি টেস্ট খেলার সুযোগ পায়নি। অন্যদিকে আমরা গতকিছু দিন বাইরের কন্ডিশনে খেলিনি। বিশেষ করে উপমহাদেশের কন্ডিশন আমাদের জন্য আদর্শ নয়। তারপরও এর সঙ্গে আমাদের মানিয়ে নিতে হবে। গত অ্যাশেজে কন্ডিশন আমাদের পক্ষে না থাকা স্বত্ত্বেও আমরা জিতেছিলাম।’

এর আগে ২০১০ সালে চট্টগ্রামে খেলেছিল ইংলিশরা। যেই টেস্টে বাংলাদেশ হেরেছিল ১৮১ রানে। তাই অতীতের কথা মনে করেই সেরকম উইকেটই প্রত্যাশা করছেন ইংলিশ অধিনায়ক, ‘আশা করি ভালো উইকেটে খেলা হবে। ২০১০ সালে আমরা এখানে খেলেছিলাম। সেবার উইকেট খুব ভালো ছিল। আশা করি সেবারের মতোই আচরণ করবে চট্টগ্রামের উইকেট।’

উইকেট প্রসঙ্গে কুক বলেছেন, ‘বাংলাদেশের স্কোয়াডে বেশ কয়েকজন স্পিনার আছে। আমার মনে হয় উইকেট অবশ্যই স্পিন সহায়ক হবে। উপমহাদেশের উইকেটে সব সময় বাড়তি টার্ন হয়ে থাকে। প্রথম কয়েকদিন এখানে ব্যাটিং স্বর্গ হলেও এরপর উইকেটে আস্তে আস্তে ভাঙন ধরবে। বিশেষ করে চতুর্থ ও পঞ্চম দিনের উইকেট থেকে বোলাররা বাড়তি সুবিধা আদায় করে নিতে পারবে।’

উল্লেখ্য, চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত ওই টেস্টে কুক ১৭৯ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন পল কলিংউডও। প্রথমে ব্যাটিং করা ইংলিশদের ৫৯৯ রানের জবাবে বাংলাদেশ ২৯৬ রানে অলআউট হয়েছিল। ৩০৩ রানে এগিয়ে থেকে ইংলিশরা তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২০৯ রান করেই ইনিংস ডিক্লেয়ার করেছিল। যেখানে জয়ের জন্য বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৫১২ রান। কিন্তু টাইগাররা জুনায়েদ সিদ্দিকের সেঞ্চুরিতে ৩৩১ রানেই অলআউট হয়ে যায়।

Print Friendly, PDF & Email