ক্যারিয়ার নিয়ে অতৃপ্তি নেই নাফীসের

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কসম্ভাবনাময় ব্যাটসম্যান হিসেবেই আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে যাত্রা শুরু হয়েছিল শাহরিয়ার নাফীসের। যার নাম ছিল ২০০৬ সালের আইসিসির ইমার্জিং খেলোয়াড় তালিকাতেও! অথচ এমন সম্ভাবনাময় হয়েও নানা কারণে ক্যারিয়ারটা খুব বেশি লম্বা হয়নি। এক পর্যায়ে ব্রাত্য হয়ে গত কয়েক বছর ধরে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি ধারাভাষ্যকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। শেষ পর্যন্ত শনিবার দুপুরে হোম অব ক্রিকেটে বিদায় বেলায় নাফীস জানালেন, কোনও অতৃপ্তি নিয়ে ক্রিকেটকে বিদায় জানাচ্ছেন না তিনি।

সাবেক হওয়ার অনুভূতি জানাতে গিয়ে নাফীস বলেছেন, ‘একটু কঠিন অনুভূতি। গতকাল (শুক্রবার) থেকেই চিন্তাভাবনা কেমন যেন ঘোলাটে হয়ে যাচ্ছিল। আমি খেলবো না এটা ভাবতে খুব কষ্ট লাগছে না, তবে অনুভূতিটা কেমন যেন অদ্ভুত। স্কুল ছেড়ে যাওয়ার সময় যেমন অনুভূতি হয়, অনেকটা তেমন। আমি সবসময় সব সিদ্ধান্ত ভেবেচিন্তে নিয়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে, এটাই সঠিক সময়। আমাদের চেয়েও বড় অনেক ক্রিকেটারের এই সৌভাগ্য হয়নি। বিসিবি ও কোয়াবকে ধন্যবাদ এরকম একটা আয়োজনের জন্য।’

নাফীস আরও যোগ করে এর পর বলেছেন, ‘অহংকার করে বলছি না, আমি ধর্মপ্রাণ একজন মুসলমান। আমি ভাগ্যে বিশ্বাস করি। আরও বিশ্বাস করি আমার সেরা যেটা ছিল আল্লাহ তাই দিয়েছেন। তাই আমার কোনও অতৃপ্তি নেই।’

ব্যাট-প্যাড গুছিয়ে রাখলেও ক্রিকেট অফিসের দায়িত্বে ঠিকই দেখা যাবে বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানকে। ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের ডেপুটি ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন নাফীস। সেই দায়িত্ব প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে যুক্ত হতে চলেছি। যোগ দেওয়ার পর কাজের পরিধি, কতটুকু করতে পারবো বা পারবো না, সেটা তখন বুঝবো। এখন এ ব্যাপারে মন্তব্য করার সঠিক সময় নয়।’

শাহরিয়ার নাফিস ৭৫ টি ওয়ানডে, ২৪টি টেস্ট ও ১টি টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তিন ফরম্যাটে তার ব্যাট থেকে এসেছে মোট ৩ হাজার ৪৯৩ রান। নিজের ক্যারিয়ার মূল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমার সবচেয়ে বড় পাওয়া বাংলাদেশ মানুষের ভালোবাসা। আমি যদি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আরও একটু বেশি খেলতাম, হয়তো পরিসংখ্যান আরও ভালো হত। কিন্তু পরিসংখ্যান দিয়ে তৃপ্তি বিচার করি না। বাংলাদেশের মানুষ ও মিডিয়ার যে ভালোবাসা পেয়েছি, এর চেয়ে বেশি ভালোবাসা পাওয়া একজন খেলোয়াড়ের জন্য সম্ভব না। আমার ক্যারিয়ার নিয়ে কোনও অতৃপ্তি নেই।’

এ সময় বিদায়-দিনে পরিবারের অবদানকেও স্মরণ করেছেন নাফীস, ‘আমার যখন বয়স ১০ বছর, আমি ক্রিকেট খেলতে চেয়েছি এবং আমার আব্বা-আম্মা আমাকে সমর্থন করেছেন। তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। পুরো ক্যারিয়ারজুড়ে সবচেয়ে বড় অবদান আমার স্ত্রীর। কারণ আমি খুব অল্প বয়সে বিয়ে করে ফেলি। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরুর সঙ্গে সঙ্গে বিয়ে করেছিলাম। এরপর অনেক উত্থানপতন ছিল। খেলোয়াড়দের সফলতা অনেকে দেখে, ব্যর্থতা দেখে না। কিন্তু পরিবারের কষ্টটা কেউ দেখে না। কত কষ্ট করতে হয়, কত ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। বিশটা বছর খেলেছি, এই বিশ বছরে একবারও টানা বিশদিন বাসায় সময় দিতে পারিনি। পরিবারের অবদানেই এতদূর আসা সম্ভব হয়েছে।’

Print Friendly, PDF & Email