ক্লে কোর্টে নাদালের ৪০০তম জয়

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কবার্সেলোনা ওপেনে নিজের ১১তম শিরোপা থেকে আর এক জয় দূরে রাফায়েল নাদাল। র‍্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর এই তারকা বেলজিয়ামের ডেভিড গফিনকে হারিয়ে বার্সেলোনা ওপেনের ফাইনালে উঠেছেন।

বার্সেলোনায় শনিবার সেমিফাইনালে র‍্যাঙ্কিংয়ের ১০ নম্বর খেলোয়াড় গফিনকে ৬-৪, ৬-০ গেমে হারান বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নাদাল।

এই জয়ে দারুণ একটি মাইলফলক ছুঁয়েছেন ৩১ বছর বয়সি স্প্যানিশ তারকা। ক্লে কোর্টে লাল দুর্গের রাজার যে এটি ৪০০তম জয়। পাশাপাশি ক্লে কোর্টে নিজের টানা জয়ের সংখ্যাটা নিয়ে গেলেন ৪৪ সেটে।

টেনিসের উন্মুক্ত যুগে নাদাল চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে ক্লে কোর্টে ৪০০ বা এর বেশি জয় পেলেন। ৬৫৯ জয় নিয়ে সবার ওপরে আর্জেন্টিনার গিয়ের্মো ভিলাস। এরপর আছেন স্পেনের ম্যানুয়েল ওরানতেস (৫০৫ জয়) ও অস্ট্রিয়ার থমাস মুস্টার (৪২২ জয়)।

ক্লে কোর্টে নাদাল হেরেছেন মাত্র ৩৫ বার। জয়ের শতকরা হার ৯১.৯ শতাংশ। আর শিরোপা জিতেছেন ৫৪টি। এর ১০টি রোলাঁ গারোঁর লাল মাটিতে, মানে ফ্রেঞ্চ ওপেনে।

ক্লে কোর্টে গফিনের সঙ্গে তিনবারের দেখায় তিনবারই জিতলেন নাদাল। জয়ের পর এই স্পানিয়ার্ড বলেছেন, ‘আমি খুবই আনন্দিত। আমার মনে হয়, টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত আমার সেরা ম্যাচ খেলেছি, এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। প্রথম সেটটা ছিল দুর্দান্ত। আমরা দুজনই সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলেছি।’

গত সপ্তাহে নাদাল মন্টে কার্লো মাস্টার্সে জিতেছেন নিজের ১১তম শিরোপা। বার্সেলোনা ওপেনে নিজের আগের ১০ বারের ফাইনালে প্রতিবারই তিনি চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন।

১১তম শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে রোববারের ফাইনালে গ্রিসের ১৯ বছর বয়সি স্টেফানোস তিতসিপাসের মুখোমুখি হবেন স্প্যানিশ নম্বর ওয়ান। ১৯৭৩ সালের পর প্রথম গ্রীক খেলোয়াড় হিসেবে কোনো এটিপি ট্যুর ফাইনালে উঠেছেন তিতসিপাস।

ফাইনালের প্রতিপক্ষকে যথেষ্ট সমীহই করছেন নাদাল, ‘স্টেফানোস দারুণ একজন খেলোয়াড়। সব সময় তরুণ খেলোয়াড়দের বিশেষ কিছু থাকে এবং সে দারুণ আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলছে। সুতরাং ফাইনালে খুব কঠিন একটি ম্যাচ হতে যাচ্ছে। সম্ভাব্য সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলার জন্য আমাকে প্রস্তুত হতে হবে।’

২০০৫ সালে নাদালের পর তিতসিপাসই বার্সেলোনা ওপেনের সর্বকনিষ্ঠ ফাইনালিস্ট। র‍্যাঙ্কিংয়ে ৬৩তম স্থানে থাকা তিতসিপাস প্রতিযোগিতায় তার প্রতিটা মুহূর্তই উপভোগ করছেন, ‘এর চেয়ে বেশি আমি উপভোগ করতে পারতাম না।

আমি কোর্টে এসেছি এবং প্রতিটা মুহূর্ত উপভোগ করেছি। নিজেকে নিয়ে আমি খুবই গর্বিত। বিশ্বাস করি, আমার দেশকে আমি গর্বিত করেছি।’

Print Friendly, PDF & Email