চূড়ান্ত পর্বে ৩৪২ স্বর্ণ পদকের জন্য লড়বে ২৬৬০ ক্রীড়াবিদ

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক সারা দেশ থেকে সম্ভাবনাময়ী ক্রীড়াবিদদের খুঁজে বের করতে প্রথমবারের মতো প্রবর্তিত বাংলাদেশ যুব গেমসের উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ের পর্যায়ের প্রতিযোগিতা ইতোমধ্যে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

গত বছরের ২৮ অক্টোবর লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে যে বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন, সারা দেশে তা রূপ পেয়েছে যুব জাগরনের। গত বছরের আগামী ১০ থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে চূড়ান্ত পর্ব।

গত বছরের ১৮ থেকে ২৪ ডিসেম্বর ২১ টি ডিসিপ্লিনে ২৭ হাজার ১৯৬ জন ক্রীড়াবিদ সহ প্রশিক্ষক,সংগঠক এবং ম্যাচ অফিসিয়াল মিলে ৪৮ হাজার ৪২৮ জন ক্রীড়াবিদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহনে দেশের ৬৪টি জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় উপজেলা পর্যায়ের বাংলাদেশ যুব গেমস ফেলেছে ব্যাপক সাড়া।

পরবর্তীতে ৮টি বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার ব্যবস্থাপনায় ৬৭০৮ জন ক্রীড়াবিদকে নিয়ে এ বছরের ৮ থেকে ১৩ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ যুব গেমসের জেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতা। ২টি কঠিন ধাপ সফলভাবে আয়োজনের পর এখন দরজায় কড়া নাড়ছে বাংলাদেশ যুব গেমসের চূড়ান্ত পর্ব।

২০ কোটি টাকা বাজেটের এই আসরের চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহনের জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাছাইকৃত সেরা তরুন ক্রীড়াবিদরা জড়ো হতে শুরু করেছে ঢাকা। আগামী ১০ মার্চ থেকে ১৬ মার্চ ৩৪০টি স্বর্নপদকের লড়াইয়ে অবতীর্ন হচ্ছে অনূর্ধ্ব-১৭ বছরের ২৬৬০ জন ক্রীড়াবিদ।

গত ৭ মার্চ ফুটবল দিয়ে শুরু হয়েছে চূড়ান্ত পর্ব। তবে আগামী ১০ মার্চ সন্ধায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষনার মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত পর্বের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। চূড়ান্ত পর্বে দলগত ডিসিপ্লিনে ফুটবল,কাবাডি,বাস্কেটবল,ভলিবল,হ্যান্ডবল ও হকি এবং ব্যক্তিগত ডিসিপ্লিনে অ্যাথলেটিক্স সাঁতার,টেবিল

টেনিস,ভারোত্তোলন,রেসলিং,উশু,শ্যুাটিং,আরচ্যারি,ব্যাডমিন্টন,বক্সিং,দাবা,জুডো,কারাতে,তায়কোয়ানডো,স্কোয়াশের ১৫৯টি ইভেন্টে ১হাজার ১১৪ টি পদকের লড়াইয়ে ( ৩৪০টি স্বর্ন, ৩৪০টি রৌপ্য এবং ৪৩০টি ব্রোঞ্জ ) ২৬৬০ জন প্রতিযোগী নিবে অংশগ্রহন। ২১টি ডিসিপ্লিনের জন্য ইতোমধ্যে ভেন্যু চূড়ান্ত হয়েছে।

চূড়ান্ত পর্যায়ের প্রতিযোগিতা আয়োজনে ২১টি ক্রীড়া ফেডারেশনকে দেয়া হয়েছে দায়িত্ব। ফেডারেশন সমূহের মাধ্যমে অংশগ্রহনকারী ক্রীড়াবিদদের আবাসন সুবিধা দেয়া হয়েছে, দৈনিক ভাতা বন্টন এবং আসা-যাওয়ার খরচও ইতোমধ্যে দেয়া হয়েছে। অংশগ্রহনকারী ক্রীড়াবিদদের সবাইকে দেয়া হয়েছে ট্র্যাকস্যুট এবং বিভাগীয় দলের জার্সি।

বাংলাদেশ যুব গেমসের চূড়ান্ত পর্ব থেকে সেরাদের খুঁজে বের করতে বিওএ এবং ফেডারেশনসমূহের সমন্বয়ে টেকনিক্যাল কমিটি গঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ যুব গেমসের চূড়ান্ত পর্বে বয়স নির্ধারনী পরীক্ষা দিতে হয়েছে ক্রীড়াবিদদের। বাংলাদেশ যুব গেমসের মেডিকেল কমিটি সে পরীক্ষা নিয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে আকর্ষনীয় করতে ব্যাপক পরিকল্পনা ইতোমধ্যে গ্রহন করেছেন সিরিমনিজ কমিটি। লেজার শো, আতশবাজি এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়াও অনুষ্ঠানকে আকর্ষনীয় করতে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট অন্তর শো বিজের ব্যবস্থাপনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থাকবে নুতনত্ব বলে আশা করছি।

বাংলাদেশের কৃতি ক্রীড়াবিদ, কমনওয়েলথ গেমস এবং সাফ গেমসে শ্যুটিংয়ে স্বর্ন জয়ী ক্রীড়াবিদ আসিফ হোসেন খান অলিম্পিক মশাল প্রজ্বলন করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মার্চপাস্টে ৮টি বিভাগীয় দলের ব্যানারে অংশ নিবেন ক্রীড়াবিদরা। ২০ কোটি টাকার এই আসরে চূড়ান্ত পর্বে পদক পাবেন বিজয়ীরা। বিজয়ী দল পাবে ট্রফি।

চূড়ান্ত পর্ব উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিওএ ভবনের ডাচ বাংলা অডিটোরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের ( বিওএ) মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজার উপস্থিতিতে চূড়ান্ত পর্বের বিস্তারিত তুলে ধরেন বাংলাদেশ যুব গেমসের মিডিয়া এন্ড পাবলিসিটি কমিটির চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ অলিম্পিক এসেসিয়েশনের সহ-সভাপতি শেখ বশির আহমেদ।

বাংলাদেশ যুব গেমসের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য সচিব আশিকুর রহমান মিকু এবং বিওএর উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর এই সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। প্রতি ২ বছর অন্তর অন্তর বাংলাদেশ গেমস ও বাংলাদেশ যুব গেমস আয়োজনের ঘোষনা দেন বিওএ মহাসচিব।

চূড়ান্ত পর্ব থেকে বাছাইকৃত তরুন ক্রীড়াবিদদের পরবর্তীতে সংশ্লিস্ট ফেডারেশন সমূহ উন্নত প্রশিক্ষনের সুযোগ দিবে বলে মিডিয়াকে জানিয়েছেন বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। 

Print Friendly, PDF & Email