জীবনের সেরা রেস রিওতেই, হুঙ্কার বোল্টের

স্পোর্টস লাইফডেস্ক :জীবনের সেরা দৌড় তিনি উপহার দেবেন রিও অলিম্পিক্সেই। বক্তার নাম? ইউসেইন বোল্ট। স্পেনের এক পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ্বের দ্রুততম মানব বলেছেন, ‘‘রিও দে জেনেইরোতে জীবনের সেরা দৌড় উপহার দিতে পারব বলেই আমি আশাবাদী।’’ তবে সেখানেই থামেননি বোল্ট। শুনিয়ে দিয়েছেন, বিশ্বফুটবল মঞ্চে কে সেরা তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও অ্যাথলেটিক্স বিশ্বে কে দ্রুততম মানব, সেই প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা করার সুযোগই তিনি দেবেন না।

বোল্টের কথায়, ‘‘বিশ্বফুটবলে কে সেরা, তা নিয়ে ক্রমাগত একটা তর্ক চলে। কিন্তু আমি সেই বিতর্ক তৈরি হওয়ার সুযোগই দেব না। আপনি যদি বিশ্বরেকর্ডের অধিকারী হয়ে থাকেন, তবে কেউ তা নিয়ে কথা বলার সাহস দেখাবেন না।’’ যোগ করেছেন, ‘‘ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, আমার এই রেকর্ডগুলো বহুদিন অটুট থাকবে।’’

২০০৮ বেজিং অলিম্পিক্সে আবির্ভাব বিদ্যুৎ-বোল্টের। পেরিয়ে গিয়েছে আটটি দীর্ঘ বছর। ২০১৬ রিও অলিম্পিক্সের সামনে দাঁড়িয়ে ২৯ বছরের ইউসেইন বোল্ট কি নিজের মধ্যে কোনও পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছেন? জামাইকার তারকা বলেছেন, ‘‘মানসিকতায় বদল অবশ্যই এসেছে। আমি যে এখনও সেরা, সেটা নিজের কাছে প্রমাণ করার চ্যালেঞ্জ থাকেই।’’ আরও বলেছেন, ‘‘আমার প্রেরণা কী, তা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন। কিন্তু আমি তো কখনও শুধু সেরা হতে চাইনি।

আমি সর্বশ্রেষ্ঠ হতে চেয়েছি। সেই মনোভাবই এগিয়ে নিয়ে চলেছে।’’ সেখানে না থেমে আরও বলেছেন, ‘‘সর্বশ্রেষ্ঠ হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে জয় ধরে রাখতে হবে। সেই ভাবনা আমাকে প্রতিনিয়ত আরও দ্রুত হওয়ার শক্তি জোগায়।’’ বরং এক ধাপ এগিয়ে বোল্ট বলেছেন, ‘‘প্রত্যেকবার ট্র্যাকে নেমে জেতার চেষ্টা করার মধ্যে একটা অদ্ভুত মজা রয়েছে। ক্রীড়াদুনিয়া সেটাই আমার থেকে আশা করে থাকে।’’

হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট থেকে তিনি যে সম্পূর্ণ মুক্ত, তা বোঝা গিয়েছে লন্ডন অ্যানিভার্সারি গেমসের ২০০ মিটারে জয়ের পরেই। বোল্ট বলেছেন, ‘‘গত দু’সপ্তাহে ধীরে ধীরে অনুশীলন করেছি। আমার ভালই লাগছে। ট্র্যাকে ফিরে আসায় আনন্দই হচ্ছে।’’ জানিয়েছেন, জার্মানি জাতীয় ফুটবল দলের চিকিৎসক উইলহেম মুলারের কাছে গিয়েছিলেন চোট সারাতে। তাঁর পরামর্শ মেনেই ট্রেনিং করছেন।

 তবে রিও’তে জীবনের সেরা দৌড় উপহার দেওয়ার ফাঁকে আরও একটি ইচ্ছা আছে ম্যান ইউ-ভক্ত বোল্টের। দেখা করতে চান নেমার দ্য সিলভা স্যান্টোস জুনিয়রের সঙ্গে। শনিবার জাপানের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে ব্রাজিল ২-০ গোলে জিতেছে। যদিও গোল পাননি অধিনায়ক নেমার। বোল্ট বলেছেন, ‘‘নেমারের খেলার স্টাইলটা আমার দারুণ লাগে।  অলিম্পিক্সের ফাঁকে নেমারের সঙ্গে দেখা করে কিছুক্ষণ গল্প করতে চাই।’’

Print Friendly, PDF & Email