তিন শিশু’র বাংলা চ্যানেল পাড়ি!

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক তিন ভারতীয় শিশু এবার টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন দ্বীপ পর্যন্ত ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরপাল্লার বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দিলেন।

আজ শনিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা ১৪ মিনিটে টেকনাফের ফিসারিজ জেটি থেকে এ সাঁতার শুরু হয়। এরপর ফ্রি স্টাইল সাঁতরে ১১ বছর বয়সী বিধান্ত বিশ্বনাথ সাওয়ান্ত ৪ ঘণ্টা ২৫ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেন্ট মার্টিন দ্বীপের জেটির কাছে সর্বপ্রথম সাঁতার শেষ করে।

১২ বছর বয়সী অপর মেয়ে সাঁতারু ডলি দেবিদাস পাতিল ৪ ঘণ্টা, ১৪ মিনিট ৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্বিতীয় এবং ১১ বছর বয়সী সাঁতারু রাজ সন্তোষ পাতিল ৪ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট ২ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় পজিশনে সাঁতার শেষ করেন।

ভারতীয় সাঁতারুদের মুম্বাইভিত্তিক সংগঠন ওপেন ওয়াটার সি সুইমিং অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এই তিন শিশু সাঁতারু এবার বাংলা চ্যানেল সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। এভারেস্ট একাডেমি ও এলিগ্রো টুরস এবারের সাঁতার আয়োজন করে।

বাংলাদেশের প্রথম এভারেস্টজয়ী মুসা ইব্রাহীম, সাঁতারুদের কোচ অজয় অনন্ত ঠাকুর এবং বাংলা চ্যানেল সাঁতারের রেফারি তোফাজ্জল হোসেন বাচ্চু পুরো সময় সাঁতারুদের সঙ্গে থেকে সাঁতার পরিচালনা করেন। সবশেষে সাঁতারুদের মেডাল প্রদান করা হয়। এ সময় সেন্ট মার্টিন দ্বীপে উৎসুক জনতা এবং সাঁতারুদের বাবা-মা উপস্থিত ছিলেন।

গাইড বোট, রেসকিউ বোট ও স্বেচ্ছাসেবকরা সাঁতারুদের সহযোগিতা করে। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টে ছিল টপ অব দি ওয়ার্ল্ড এবং সহযোগিতায় ছিল এক্সট্রিম বাংলা ও নর্থ আলপাইন ক্লাব বাংলাদেশ।

বাংলা চ্যানেলের আবিষ্কারক কীর্তিমান ফটোগ্রাফার ও স্কুবা ডাইভার প্রয়াত কাজী হামিদুল হকের (১৯৪৯-২০১৩) প্রচেষ্টায় ২০০৬ সালে শুরু হয়ে এবছর বাংলা চ্যানেল দূরপাল্লা সাঁতারের ১২শ আসর সম্পন্ন হলো।

Print Friendly, PDF & Email