দক্ষিণ এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক বিকেএসপি তে অনুষ্ঠিত ৩য় সাউথ এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতের বিপক্ষে ৬টি স্বর্ণসহ মোট ১২টি পদক জিতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি ঘরে রাখলো বাংলাদেশ আর্চারি ফেডারেশন।

দক্ষিণ এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য সেরা তিরন্দাজদের বাইরে রেখেই দল গড়েছিল ভারত। তবুও তারতীয় তরুনরা জয় করে ৪টি স্বর্ণসহ মোট ১২টি পদক।

১০ ইভেন্টের মধ্যে ৬টি স্বর্ণ, ৫টি রৌপ্য ও ১টি ব্রোঞ্জ মিলিয়ে ১২টি পদক জিতে দক্ষিণ এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় আসর শেষ করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি) তে হওয়া এ প্রতিযোগীতায় ভারত জিতেছে ৪টি স্বর্ণ, ৫টি রৌপ্য ও ৩টি ব্রোঞ্জসহ ১২টি পদক।

ভারত দলে থাকা হিমানি মালিক, আকাশ মালিক ও মায়ান রাওয়াত-এই তিন আর্চারেরই কেবল আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। বাকিরা এসেছে গত মাসে হওয়া ‘খেল ইন্ডিয়া খেল’ প্রতিযোগিতা থেকে। তৃণমূল পর্যায়ের খেলোয়াড় তুলে আনার এই প্রতিযোগিতা থেকে উঠে আসা তিরন্দাজদের সাফল্যে দারুণ খুশি দলটির কোচ কপিল কৌশিক।

“তিন জন ছাড়া এই দলের সবাই একেবারেই ‘ফ্রেশ’। খেল ইন্ডিয়া খেল-প্রতিযোগিতা থেকে তারা উঠে এসেছে। অভিজ্ঞতা নেই। তাদের বয়সও কম-১৭ বছরের নিচে। এই প্রথম তারা কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় খেলছে। এমনকি এই প্রতিযোগিতার আগে তারা নিজেরা একসঙ্গে অনুশীলনও করেনি। তাই তাদের এই সাফল্যও আমাদের কাছে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি কিছু।”

রিকার্ভ পুরুষ এককের ফাইনালের স্বদেশি রোমান সানাকে ৬-২ সেটে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন ইব্রাহিম শেখ রিজওয়ান। চলতি প্রতিযোগীতা তো বটেই দক্ষিণ এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে ইব্রাহিমের হাত ধরে প্রথম স্বর্ণ জেতে বাংলাদেশ।

কম্পাউন্ড মেয়েদের এককের ফাইনালেও দুই প্রতিযোগী ছিল বাংলাদেশের। সুস্মিতা বণিককে ১৪০-১৩৩ স্কোরে হারিয়ে সেরা হয়েছেন রোকসানা আখতার। রিকার্ভ মিশ্র দলগত বিভাগের সেরা হন রোমান-নাসরিন জুটি। পরে কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত, কম্পাউন্ডের মিশ্র দলগত ও ছেলেদের রিকার্ভ দলগত বিভাগে স্বর্ণ জেতে বাংলাদেশ।

ভারতের মতো তরুণ নয়, অভিজ্ঞ ও তারুণ্যের মিশেলে গড়া বাংলাদেশ দল। রোমান-বন্যা-রোকসানার মতো অভিজ্ঞরা যেমন আছেন, অসীম-ইব্রাহিমের মতো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনভিজ্ঞরাও আছেন।

জাতীয় দলের সাবেক কোচ এবং বর্তমানে বিকেএসপির কোচ নিশিথ কুমার দাস জানান, ভারত দলের মূল্যায়নে এক কথায় বললেন-এটা ওদের তৃতীয় বা চতুর্থ দল! তবে ভারতের ‘নতুনদের’ বিপক্ষে পাওয়া সাফল্যেকে কম মনে করছেন না কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত বিভাগে স্বর্ণ জেতা অসীম।

“এটা ঠিক যে, ভারতের এই আর্চাররা নতুন কিন্তু দেখুন, ওরা আর্চারিতে অনেক এগিয়েছে। নতুন হলেও এদের মান অনেক ভালো। আমরা এখানে যে স্কোর করেছি, সেটাও বিশ্বমানের। যদি ওদের মূল দলের খেলোয়াড় আসত, তাহলেও তাদের সঙ্গে আমাদের লড়াই হত।”

শিষ্যদের সাফল্য দারুণ খুশি কোচ ফ্রেডরিখ। ভারতের একেবারে তরুণ দল পাঠানোর প্রসঙ্গ তুললে জার্মানির এই কোচও জানান বাংলাদেশ দলেও তরুণ খেলোয়াড় অনেকেই আছেন।

“ভারত তরুণ দল নিয়ে এসেছে; আমাদের দলেও তরুণ আছে এবং তারা দেশের ভবিষ্যৎ। আমাদের পুরুষ দলেও এক জনের বয়স ১৬ বছরের নিচে। যাই হোক, দলের অর্জনে আমি খুশি।”

রোমানের ব্যর্থতায় হতাশ হলেও ১৭ বছর বয়সী তরুণ ইব্রাহিমের সাফল্যে খুশি ফ্রেডরিখ, “রোমান বাছাইয়ে বড় স্কোর করেছিল, সেটা বিশ্বমানের কিন্তু ফাইনালে এসে হেরেছে। এটা রোমানের জন্য খারাপ; আমিও হতাশ কিন্তু ইব্রাহিমের স্বর্ণ জেতাটা আবার বাংলাদেশের আর্চারির জন্য ভালো সংকেত-যে, তরুণ এবং ভালো আর্চার উঠে আসছে।”

প্রতিযোগিতা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী শ্রী বীরেন শিকদার,এমপি। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আর্চারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল ও বিকেএসপির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সামছুর রহমান।

Print Friendly, PDF & Email