নিউজিল্যান্ড সফরের আশা ছাড়ছেন না শহীদ

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক ইনজুরি থেকে ফিরে দারুণ সময় কাটাচ্ছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের পেসার মোহাম্মদ শহীদ। আট ম্যাচে ১৫ উইকেট নিয়ে বিপিএলে নিজেকে অন্য রূপে মেলে ধরেছেন। টেস্ট ক্রিকেটারের তকমা গায়ে লাগানো শহীদের ফর্ম জানান দিচ্ছিলো নিজেকে প্রমাণের।

পুরোটা প্রমাণের আগেই ফের পড়লেন ইনজুরিতে। এবারের চোট ডান হাঁটুর লিগামেন্টে। এমআরই করে দেখা গেছে, চোটটা মারত্মক। অন্তত দুই সপ্তাহ থাকতে হবে বিশ্রামে। এর পর পুনর্বাসন প্রক্রিয়া। ঠিক কতদিন লাগতে পারে বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী নির্দিষ্ট করে না বললেও ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ড সফরে খেলার আশা রাখছেন শহীদ।

‘দুই সপ্তাহ আপাতত বিশ্রামে থাকবো। এরপর চার সপ্তাহ কাজ করবো। আশা করছি নিউজিল্যান্ড সফরে টেস্ট সিরিজে ফিরতে পারবো। নিউজিল্যান্ড সিরিজের আশা ছাড়ছি না। আমার হাতে যথেষ্ট সময় আছে। সে লক্ষ্যেই আমি কাজ করবো। ইংল্যান্ড সিরিজ মিস হয়েছে এটা মিস করতে চাই না।’

বিপিএলে আর খেলতে না পারার কারণে আক্ষেপ শহীদের কন্ঠে, ‘বিপিএলটা আমার ভালো যাচ্ছিলো। ১৫ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ছিলাম। খুব ভালো সময় যাচ্ছিলো। আমার একটাই লক্ষ্য ছিল ঢাকাকে চ্যাম্পিয়ন করানো। দল আমার উপর ডিপেন্ডেবল ছিল। সাকিব, সুজন ভাই সবাই আমাকে অনুপ্রাণিত, উৎসাহ জুগিয়ে আসছিল। আমি যদি পুরো বিপিএল খেলতে পারতাম তাহলে নিশ্চিত দলকে চ্যাম্পিয়ন করাতাম। বলতে পারতাম ভালো খেলে দলকে চ্যাম্পিয়ন করিয়েছি।’

শনিবার (২৬ নভেম্বর) কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে বাউন্ডারি সীমানার কাছে ফিল্ডিং করতে গিয়ে চোট পান শহীদ। সেকুজে প্রসন্নর করা ইনিংসের ১৪তম ওভারের দ্বিতীয় বলে কুমিল্লার ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদ কাট শট খেললে বল যায় ডিপ থার্ডম্যানে। একস্ট্রা কাভার থেকে বাঁ দিকে ছুটে এসে ডান পা দিয়ে বল থামাতে গিয়ে শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে মাটিতে পড়ে যান শহীদ। চোটের কারণে পরে আর মাঠে নামা হয়নি এ ডানহাতি পেসারের।

অমন ঝুঁকি নিয়ে বল থামানোর চেষ্টা প্রসঙ্গে শহীদ বলেন, ‘গা-বাঁচিয়ে খেলার জন্য তো ক্রিকেট খেলি না। যখন মাঠে নামি তখন অন্য কিছু মাথায় থাকে না। ওই ডাইভ, ওই চার বাঁচাতে গিয়ে আমার এমন হবে সেটা তো আগে চিন্তা করা যায় না। ক্রিকেট খেলছি এটা হতে পারে।’

চোট পাওয়ার আগে দুই ওভার বোলিং করে ৬ রান দিয়ে তুলে নেন একটি উইকেট। বিপিএলে দারুণ ছন্দে আছেন নিউজিল্যান্ড সফরের আগে অস্ট্রেলিয়ায় ক্যাম্পের জন্য বাংলাদেশ দলের স্কোয়াডে থাকা এ পেসার। আট ম্যাচে ১৫ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় শহীদ রয়েছেন দ্বিতীয় স্থানে। ৯ ম্যাচে ১৬ উইকেট নিয়ে শীর্ষে খুলনা টাইটান্সের পেসার শফিউল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email