প্রক্রিয়া মেনেই ড্রাফটে রাখা হয়েছিল গেইলকে, দাবি বিসিবির

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কক্রিস গেইল বলছেন, তিনি কিছুই জানেন না। বিসিবির দাবি, যথাযথ প্রক্রিয়া মেনেই গেইলকে রাখা হয়েছিল বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে। সব মিলিয়ে সৃষ্টি হয়েছে খানিকটা ধোঁয়াশার। তবে বিসিবি প্রধান নির্বাহীর কথায় ইঙ্গিত মিলল, সমস্যার শেকড়ে থাকতে পারে আর্থিক কোনো ঝামেলা। সেসব মিটে গেলে গেইলকে বিপিএলে দেখা গেলেও হয়তো বিস্ময়ের কিছু থাকবে না।

এবারের বিপিএলে বিদেশি ক্রিকেটারদের প্রথম ডাকেই চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স দলে নেয় গেইলকে। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগে খেলা শেষে গেইল সংবাদমাধ্যমকে জানান, তিনি নিজেও জানেন না, বিপিএলের ড্রাফটে কিভাবে তার নাম উঠেছে। এই বছরের বাকি সময়টায় তিনি থাকবেন বিশ্রামে।

স্বাভাবিকভাবেই গেইলের মন্তব্য প্রবলভাবে নাড়া দিয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে। চট্টগ্রাম দলের জন্যও এটি এসেছে বড় ধাক্কা হয়ে।

বুধবার দুপুরে বিসিবিতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী জানালেন, ড্রাফটে থাকা সব ক্রিকেটারকে নিয়ম মেনেই রাখা হয়েছিল।

“আমি কোনো একজন ক্রিকেটারকে নিয়ে বলব না। তবে কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার যখন আমাদের ড্রাফটে আসে, তখন আমরা একটা স্ট্যান্ডার্ড মেনে চলি। ক্রিকেটার বা তার এজেন্ট আগ্রহ দেখালে তার নাম ড্রাফটে চলে আসে। একটা প্রক্রিয়া মেনে এটি হয়, ডকুমেন্টশনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। আমরা খতিয়ে দেখেছি যে, প্রক্রিয়া মেনেই তাকে ড্রাফটে রাখা হয়েছে। শুধু এই ক্রিকেটার নন, অন্য যারা আছেন, সবাইকে প্রক্রিয়া মেনেই রাখা হয়েছে।”

প্রক্রিয়া মেনে ড্রাফটে রাখা হলে গেইলের না জানার কারণ নেই। তাহলে কেন তিনি এমন মন্তব্য করলেন, সেটি নিয়ে সরাসরি কিছু বলতে চাননি প্রধান নির্বাহী। তবে তার কথায় ইঙ্গিত মিলল, সমস্যার উৎস হতে পারে পারিশ্রমিক!

ড্রাফটে থাকা বিদেশি ক্রিকেটারদের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক ছিল এবার ১ লাখ ডলার। গেইলেরও সেটিই পাওয়ার কথা। কিন্তু ড্রাফটের বাইরে দুইজন ক্রিকেটার নেওয়ার যে নিয়ম রাখা হয়েছে, সেই নিয়মে শোয়েব মালিক, গেইলের স্বদেশি আন্দ্রে রাসেল এর মধ্যেই বিপিএলে চুক্তি করেছেন আরও বেশি পারিশ্রমিকে। গেইলও তেমন কিছু ভাবছেন কিনা এখন, বলা কঠিন। তবে প্রধান নির্বাহীর আশা, সমাধান হবে শিগগিরই।

“আমরা অবগত নই যে কিভাবে বা কোন পরিস্থিতিতে কথাটি এসেছে। সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারের এজেন্টের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ হচ্ছে। যে দলে তার খেলার কথা, তাদের সঙ্গেও সংশ্লিষ্ট এজেন্টের যোগাযোগ হচ্ছে। আশা করছি, খুব শিগগিরই একটি সমাধান হবে।”

“প্রক্রিয়া মেনেই তাকে ড্রাফটে রাখা হয়েছিল। হয়তো আর্থিক কোনো ব্যাপার ছিল, সেই বিষয়গুলো নিয়ে তারা কাজ করছেন। সমাধান হলেই বোঝা যাবে।”

গেইলকে দলে নেওয়া চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের খেলা দিয়েই আগামী ১১ ডিসেম্বর শুরু হবে এবারের বিপিএল।

Print Friendly, PDF & Email