প্রথম ইনিংসে ২৯৩ রানে অলআউট ইংল্যান্ড

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক আগের দিন ৩৬ বলে ৩৪টি ডট দিয়েছিলেন। ১৭ ওভারের ৮টি ছিল মেডেন। রান দিয়েছিলেন সাকুল্যে ২৮। ফিল্ডার মিস না করলে একটি উইকেট পেতেই পারতেন। কিন্তু কোনো উইকেট না নিয়ে প্রথম দিন শেষ করার আক্ষেপটা দ্বিতীয় দিন সকালে মাঠে পা রেখেই মিটিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। এই বাঁ হাতি স্পিনারের ঘূর্ণীতেই দ্বিতীয় দিনের সকালে ধুঁকতে ধুঁকতে ২৯৩ রানে প্রথম ইনিংসে অল আউট হয়েছে ইংলিশরা। তাইজুল নিয়েছেন ২ উইকেট। বাকিটা মেহেদি হাসান মিরাজের। দেশের পক্ষে অভিষেকে সেরা বোলিংয়ের কীর্তি তার।

৭ উইকেটে ২৫৮ রান নিয়ে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এই দিন শুরু ইংল্যান্ডের। ৩৬ রানে দাঁড়ানো ক্রিস ওকসের ৯টি ও ৫ রানে থাকা আদিল রশিদের ১০টি ফার্স্ট ক্লাস সেঞ্চুরি আছে। এমন অল রাউন্ডারের দলকে আরেকটি ধাক্কায় দ্রুত অল আউট করনা যাবে তো? এই প্রশ্ন সামনে রেখে মুশফিকুর রহিমের দল মাঠে। এবং দিনের প্রথম বলেই তাইজুলকে খেলতে গিয়ে না বুঝে মুমিনুল হককে ক্যাচ দিয়ে দিলেন ওকস।

আগের দিনে অভিষেকে ৫ উইকেট নিয়ে ইংলিশদের বড় ক্ষতি করা মেহেদি হাসান মিরাজ অন্য প্রান্তে চাপ বাড়িয়েছেন। লাভটা তুলেছেন তাইজুল। আরো ৩১ রান পর তাইজুলকে তুলে মারলেন আদিল (২৬)। কভারে অসম্ভব ক্ষীপ্রতায় দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়েছেন সাব্বির রহমান।

তাইজুলের পরের ওভারেই ঠিক ২৯০ রানের সময় অল আউট হতে পারতো ইংল্যান্ড। আধুনিক প্রযুক্তি বাঁচিয়েছে তাদের। আগের দিন মঈন আলি তিনবার আউট হয়ে তিনবারই রিভিউ নিয়ে বেঁচেছিলেন। তাকে আউট দেওয়া আম্পায়ার ছিলেন লঙ্কান কুমার ধর্মসেনা। এদিন তার সিদ্ধান্তে ব্রড আউট তাইজুলের বলে। কিন্তু রিভিউতে ডিআরএসের কল্যাণে ব্রড নট আউট। ধর্মসেনাকে আবার সিদ্ধান্ত বদলাতে হয়!

তবে কিছুক্ষণের মধ্যে মেহেদ আঘাত হানেন। ব্রডকে (১৩) রিভিউতেই আউট করে অল আউট করেন ইংল্যান্ডকে। এটি মেহেদির ষষ্ঠ উইকেট। অভিষেকে বাংলাদেশের সেরা বোলিং ফিগারের ইতিহাস গড়ে প্রথম ইনিংস শেষ করলেন মেহেদি। ৩৯.৫ ওভারে ৮০ রানে ৬ উইকেট। ইকোনোমি মাত্র ২! ১৮ বছরের বোলারের কি দারুণই না বোলিং!

Print Friendly, PDF & Email