বিসিবি’র চোখ ইউরোপীয়ান কোচের দিকে

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কচলতি জুলাই মাসেই হওয়ার কথা ছিল ২০২১ ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব, যা এর মধ্যে একবার স্থগিতও হয়েছে। বিশ্বকাপ হতে হলে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব আয়োজন করতেই হবে। ইএসপিএন–ক্রিকইনফো জানিয়েছে, জুলাই মাসের বাছাইপর্ব চলে যেতে পারে নভেম্বর-ডিসেম্বরে। টুর্নামেন্টের সম্ভাব্য ভেন্যু সংযুক্ত আরব আমিরাত।

আগামী বছর জানুয়ারি–ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশে হওয়ার কথা মেয়েদের প্রথম অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। তবে বাংলাদেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক আসর মাঠে নামানো কঠিন। আগামী বছরের শুরুতে এত বড় আয়োজনের সম্ভাবনা দেখছে না বিসিবি। সূত্র জানিয়েছে, করোনার ধাক্কায় মেয়েদের অনূর্ধ্ব–১৯ বিশ্বকাপও পিছিয়ে যেতে পারে মাস ছয়েক বা তারও বেশি সময়ের জন্য। তবে বিসিবির নারী উইংয়ের প্রধান শফিউল আলম চৌধুরী এ নিয়ে এখনই কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

বিশ্বকাপের সম্ভাবনা নেই বলে মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কার্যক্রম নিয়েও বিসিবির তেমন তাড়াহুড়ো নেই। এখন বরং চেষ্টা চলছে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের মাঠে ফেরানোর। ছেলেদের মতো আলাদা আলাদা করে মেয়েদেরও অনুশীলনে ফেরানোর চিন্তা আছে। ঈদুল আজহার পরই সেটি দেখা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন শফিউল আলম।

অনুশীলনের জন্য অধীর অপেক্ষায় আছেন নারী ক্রিকেটাররাও। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক রুমানা আহমেদ জানালেন, খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে অনুশীলন করতে চান তিনি, ‘ঘরে তো সবাই কমবেশি অনুশীলন করছে। তবে মাঠে গিয়ে অনুশীলন করাটা সম্পূর্ণ আলাদা। সেটার অপেক্ষায় আছি। মাঠে গিয়ে অনুশীলন শুরু করতে পারলে ভালো হবে।’

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সালমা খাতুনেরও চাওয়া, দ্রুত মেয়েদের অনুশীলন শুরু হোক, ‘এক জায়গা থেকে তো শুরু করতেই হবে। ছেলেরা যখন শুরু করেছে, আমাদের অনুশীলনও হয়তো সামনে শুরু হবে। ফিটনেসের কাজ করে যত দ্রুত স্কিল ট্রেনিংয়ে যাওয়া যায়, ততই ভালো। চার মাস খেলার বাইরে থাকলে স্কিলে নেতিবাচক প্রভাব পড়বেই।’

মেয়েদের জাতীয় দলের কোচের পদ ফাঁকা পড়ে আছে গত ফেব্রুয়ারি থেকে। ভারতীয় কোচ অঞ্জু জৈনের চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর থেকেই বিসিবি আছে নতুন কোচের সন্ধানে। দুই বছর আগে ভাষাগত সুবিধার কথা ভেবে মেয়েদের দলে ভারতীয় কোচ নিয়োগ দেয় বিসিবি। কিন্তু অঞ্জু জৈনের কর্মকাণ্ডে বিসিবির বিরক্তির শেষ নেই। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দলে কোন্দল সৃষ্টি করার অভিযোগ রয়েছে জৈনের বিরুদ্ধে। বিশ্বকাপে ব্যর্থতার জন্যও বিসিবি তাঁকেই দায়ী করে। 

এলোমেলো হয়ে যাওয়া দলটাকে গোছাতে বিসিবি এবার চায় ইউরোপীয় কোচ নিয়োগ দিতে। করোনাকালে খেলা না থাকলেও বিসিবির কোচ খোঁজার কার্যক্রম চলছে। পাঁচজনের ছোট্ট তালিকা করাও শেষ। নারী উইংয়ের প্রধান বলছিলেন, ‘চার-পাঁচজনের নাম আছে আমাদের কাছে। হয়তো ইউরোপিয়ান কাউকেই নিতে হবে। আমরা আগে উপমহাদেশের কোচ এনে দেখেছি। আমাদের এলোমেলো হয়ে যাওয়া দলটাকে আবার ঠিক করতে হবে।’

Print Friendly, PDF & Email