ভিলেজ থেকে দূরে সোনার প্রস্তুতি বোল্টের

স্পোর্টস লাইফডেস্ক : রিও’তে তিনি পৌঁছেছেন ২৭ জুলাই। তাঁর পরনে ছিল কালো পোশাক। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এবং তাঁর সমর্থকরা ভেবেছিলেন, তিনি হয়তো অলিম্পিক ভিলেজেই থাকবেন। কিন্তু ভক্তদের হতাশ করে ইউসেইন বোল্ট চলে গিয়েছেন অলিম্পিক ভিলেজ থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে! রিওর উত্তরে নদীর ধারে, নির্জন একটি স্থানে। সেখানে তাঁর থাকার জায়গা? একটি চারতারা হোটেল! অলিম্পিক্সে অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হবে ১২ অগস্ট। বোল্ট নামবেন ১৩ অগস্ট। তার আগে পর্যন্ত এই নির্জন জায়গাই হবে বিশ্বের দ্রুতদম মানবের ঠিকানা।

বোল্টের এরকম নির্জন জায়গা বাছার একমাত্র কারণ, তাঁর অনুশীলনে যেন কোনওরকম ব্যাঘাত না ঘটে। ব্রাজিলের সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, হোটেলে ঢোকার পরের দিন সকাল থেকে অন্তত দশজন বোল্টভক্ত দাঁড়িয়ে ছিলেন হোটেলের সামনে! কিংবদন্তি অ্যাথলিটকে সামনে থেকে দেখার আশায়। টানা দু’টো অলিম্পিক্সে সোনাজয়ের ‘ডাবল’ করা এই অ্যাথলিটকে বেরোতেও দেখা গিয়েছে তাঁর কোচ গ্লেন মিলসের সঙ্গে। দূর থেকে চিত্রসাংবাদিকরা ছবিও তুলেছেন তাঁদের। কিন্তু সংবাদমাধ্যমকে ঘেঁষতে দেওয়া হয়নি।

জামাইকার অন্য অ্যাথলিটরাও অলিম্পিক ভিলেজে থাকছেন না। তাঁরা ঠিক করেছেন জসান নামের একটি জায়গা। সেটা ব্রাজিলের নৌবাহিনীর কেন্দ্র। সেটাও শহরের মূল কেন্দ্র থেকে অনেকটাই দূরে। সেই কেন্দ্রের কাছাকাছি একটা সাদামাটা হোটেলে রয়েছেন ইয়োহান ব্লেকরা। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের দেওয়া খবর অনুযায়ী, জামাইকার অ্যাথলিটরাও চূড়ান্ত প্রস্তুতি সেরে অলিম্পিক ভিলেজে আসবেন ১২ অগস্টের আগে।

সোনাজয়ের প্রসঙ্গে বোল্ট অবশ্য আত্মবিশ্বাসী। বলেছেন, ‘‘যদি সব ঠিক থাকে তাহলে রিওতেও সোনা আমি জিতব।’’ ল্যান্স ব্রুম্যান। স্প্রিন্টে বিশ্বের অন্যতম সেরা কোচ। টাইসন গে-রও কোচ ছিলেন তিনি। মন্তব্য করেছেন, ‘‘যে কেউ যে কোনওদিন হারতে পারে। কিন্তু বোল্টের অবিশ্বাস্য প্রতিভা। আমার জীবনে এরকম স্প্রিন্টার দেখিনি।’’

Print Friendly, PDF & Email