রোনালদোর চেয়ে কম সময়ে মেসির গোলের ‘সেঞ্চুরি’

গত বছরের এপ্রিলে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে জয়সূচক গোল করে চ্যাম্পিয়নস লিগে ১০০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। এবার তার সঙ্গে যোগ দিলেন লিওনেল মেসি, দ্রুততম সময়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে গোলের ‘সেঞ্চুরি’ করলেন বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

চেলসির বিপক্ষে শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে জোড়া গোল করে মেসি দলকে নিলেন কোয়ার্টার ফাইনালে। আর দ্বিতীয় খেলোয়াড় হয়ে ১০০ গোলের ক্লাবে নাম লিখলেন কয়েকদিন আগে তৃতীয় সন্তানের বাবা হওয়া এই তারকা।

চেলসির বিপক্ষে ন্যু ক্যাম্পে তৃতীয় মিনিটে দলকে এগিয়ে দেন মেসি। দ্বিতীয় গোলটি উসমান দেম্বেলেকে বানিয়ে দেওয়ার পর ৬৩ মিনিটের লক্ষ্যভেদী শটে মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি।

১০০ চ্যাম্পিয়নস লিগ গোলে রোনালদো পেয়ে গেলেন আরেক সঙ্গীকে। তবে বার্সা তারকা এই জায়গায় ঢুকেছেন তার চেয়ে ১৪ ম্যাচ কম খেলে। পর্তুগিজ উইঙ্গারের লেগেছে ১৩৭ ম্যাচ, আর মেসি পৌঁছালেন ১২৩ ম্যাচ খেলে। তাছাড়া চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ১ হাজার ৭৫৮ মিনিট ও ২৬৬টি কম শট খেলে এই সেঞ্চুরি করেছেন ৩০ বছর বয়সী আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

অবশ্য এই প্রতিযোগিতার সর্বকালের শীর্ষ গোলদাতা হওয়ার দৌড়ে মেসি বেশ পিছিয়ে। ১১৭ গোল করে এখন সবার উপরে রোনালদো।

অবশ্য ব্যক্তিগত এই মাইলফলকের চেয়ে দলকে শেষ আটের টিকিট এনে দেওয়ায় বেশি খুশি মেসি, ‘এত সুন্দর একটা প্রতিযোগিতায় ১০০ গোল করায় আমি খুশি। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো, অনেক ভালো খেলোয়াড়দের একটি দলের বিপক্ষে কঠিন ম্যাচ উতরে যাওয়া।’

বার্সা শুরুতেই এগিয়ে যাওয়া ম্যাচের পার্থক্য গড়ে দিয়েছে মনে করেন মেসি, ‘আমরা দ্রুত গোল পেলাম এবং এটা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এমনটা হওয়ায় আমি খুশি। এটা কঠিন ম্যাচ ছিল। আমরা দল হিসেবে ছিলাম শক্তিশালী। তৃতীয় গোল করার সঙ্গে সঙ্গে লড়াইটা আমাদের হাতে চলে এসেছিল।’

চেলসির কোচ আন্তোনিও কন্তে ম্যাচ শেষে মেসিকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন। প্রতিপক্ষ কোচের প্রশংসা পেয়ে বিনয়ী আর্জেন্টিনার অধিনায়ক, ‘আমি তার কথা শুনিনি। কিন্তু তিনি যা বলেছেন, সতীর্থরা আমাকে বলেছে। আমি তাকে ধন্যবাদ জানাই। আমরা কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে চেয়েছিলাম। সবকিছু ঠিকঠাক হওয়ায় আমরা সবাই সন্তুষ্ট।’

Print Friendly, PDF & Email