লেভানদোভস্কির হ্যাটট্রিকে বায়ার্নের রোমাঞ্চকর জয়

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কজ্বলে উঠলেন দুই দলের দুই তারকা ফরোয়ার্ড। জোড়া গোল করে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে এগিয়ে নিলেন আর্লিং হলান্ড। হ্যাটট্রিক করে জবাব দিলেন রবের্ত লেভানদোভস্কি। ছয় গোলের রোমাঞ্চকর ম্যাচে দুর্দান্ত জয় পেল বায়ার্ন মিউনিখ।

আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় শনিবার বুন্ডেসলিগার ম্যাচটি ৪-২ ব্যবধানে জিতেছে হান্স ফ্লিকের দল। শিরোপাধারীদের অন্য গোলদাতা লেয়ন গোরেটস্কা। শেষ দুটি গোল করেছে তারা শেষ তিন মিনিটের মধ্যে।

গত নভেম্বরে লিগে দুই দলের প্রথম দেখায় ডর্টমুন্ডের মাঠে ৩-২ গোলে জিতেছিল বায়ার্ন।

প্রতিপক্ষের মাঠে ডর্টমুন্ডের শুরুটা হয় দারুণ। দ্বিতীয় মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে শটে দলকে এগিয়ে নেন হলান্ড। নবম মিনিটে কাছ থেকে ফাঁকা জালে বল পাঠান তিনি।

বুন্ডেসলিগায় ঘরের মাঠে ম্যাচে প্রথম ১০ মিনিটে বায়ার্নের ২-০ তে পিছিয়ে পড়ার দ্বিতীয় ঘটনা এটি। সবশেষ এমনটা হয়েছিল ১৯৭৭ সালে, ডুইসবুর্গের বিপক্ষে। সেবার ২-২ ড্র হয়েছিল ম্যাচ।

জবাব দিতে বেশি সময় লাগেনি স্বাগতিকদের। ২৬তম মিনিটে কাছ থেকে ব্যবধান কমানো লেভানদোভস্কি বিরতির আগে স্পট কিকে সমতা ফেরান। ডি-বক্সে কিংসলে কোমান ফাউলের শিকার হলে ভিএআরের সাহায্যে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক আক্রমণ করেও জালের দেখা পাচ্ছিল না বায়ার্ন। ড্রয়ের দিকেই গড়াচ্ছিল ম্যাচ। কিন্তু বায়ার্নের শেষের ঝড়ে এলোমেলো হয়ে যায় ডর্টমুন্ড।

৮৮তম মিনিটে স্বাগতিকদের এগিয়ে নেন গোরেটস্কা। আর নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে ডি-বক্সের মাথা থেকে নিচু শটে হ্যাটট্রিক পূরণের পাশাপাশি দলের জয় নিশ্চিত করেন লেভানদোভস্কি।

বুন্ডেসলিগায় এটি তার ১২তম হ্যাটট্রিক। আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা লেভানদোভস্কির গোল হলো ৩১টি। জার্মানির শীর্ষ লিগে পোলিশ এই স্ট্রাইকারের চেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক আছে কেবল জার্ড মুলারের।

পুরো ম্যাচে বায়ার্ন গোলের উদ্দেশে শট নেয় মোট ২৭টি, এর ৯টি ছিল লক্ষ্যে। আর ডর্টমুন্ডের ৪ শটের ৩টি লক্ষ্যে ছিল।

২৪ ম্যাচে ১৭ জয় ও চার ড্রয়ে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বায়ার্ন মিউনিখ। ৫৩ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে লাইপজিগ।

সমান ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে আছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড।

Print Friendly, PDF & Email