সালাহ জাদুতে লিভারপুলে বিধ্বস্ত রোমা

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ক‘অবিশ্বাস্য’ ‘অসাধারণ’ ‘জাদুকর’- কোনও বিশেষণই যেন যুতসই হওয়ার নয় মোহাম্মদ সালাহর নামের পাশে। কেবল নির্বাক চোখে অবাক তাকিয়ে থেকেছে ফুটবল বিশ্ব। আর মাথা কুটে শুধুই হায়-হুতাশ করেছে অ্যানফিল্ডে অতিথি হয়ে আসা রোমা। মিশরীয় ফরোয়ার্ডের জাদুকরী পারফরম্যান্সে ইতালিয়ান জায়ান্টদের উড়িয়ে দিয়েছে লিভারপুল।

বার্সেলোনার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল ঐতিহাসিক প্রত্যাবর্তন করা রোমা সেমিফাইনালে কোনও প্রতিরোধ গড়তে পারেনি। সালাহ ও ফিরমিনোর জোড়া গোলে বিধ্বস্ত তারা। ৫-২ গোলে সেমিফাইনালের প্রথম লেগ জিতে ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল লিভারপুল।

শুরু থেকে আক্রমণে ছিল অল রেডরা। ইউরোপিয়ান মঞ্চে রোমার বিপক্ষে অজেয় দলটি প্রথম ৫ মিনিটে দুটি সুযোগ আদায় করে ব্যর্থ হয়। অবশ্য সবচেয়ে সুবর্ণ সুযোগ পায় রোমা, ১৯ মিনিটে কোলারোভের লম্বা শটের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ায় ক্রসবার।

২৯ ও ৩০ মিনিটে সাদিও মানে গোলপোস্টের পাশ দিয়ে ও ক্রসবারের উপরে দিয়ে বল মারলে লিভারপুলের সুযোগ নষ্ট হয়। ৩৪ মিনিটে রোমার জালে তিনি বল পাঠিয়েছিলেন, কিন্তু অফসাইডে বাতিল হয়।

পরের মিনিটে ফিরমিনোর চমৎকার অ্যাসিস্টে ডিবক্সে বল নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বাঁপায়ে উঁচু ও কোনাকুনি শটে দলকে এগিয়ে দেন সালাহ। সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে গোল করে উদযাপনে লাগাম টেনে ধরেন তিনি। বেশ কয়েকবার হাত জোড়া করে ক্ষমাও চেয়েছেন পিএফএ নির্বাচিত এই বর্ষসেরা ফুটবলার।

বিরতিতে যাওয়ার ঠিক আগে দিয়ে আরও একবার জাদু দেখান সালাহ। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ফিরমিনোর পাস থেকে বল পান তিনি। অ্যালিসন তাকে থামাতে সামনে ডাইভ দিয়েছিলেন। কিন্তু তার আগেই ঠাণ্ডা মাথায় রোমা গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে বল জালে জড়ান সালাহ। এতে দুটি মাইলফলক ছোঁয়া হয় তার। এনিয়ে টানা ৫টি চ্যাম্পিয়নস লিগ ম্যাচে গোল করলেন সালাহ। লিভারপুলের জার্সিতে তার আগে ২০০৭-০৮ মৌসুমে এই কীর্তি ছিল কেবল স্টিভেন জেরার্ডের।

তাছাড়া লিভারপুলের হয়ে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় রবার্ট হান্টকে (৪২) ছোঁন সালাহ। তার সামনে কেবল রাশ (৪৭), ১৯৮৩-৮৪।

এখানেই শেষ নয়। বিরতির পর মানে ও ফিরমিনোকে দিয়ে দুটি গোল করান মিশরীয় ফরোয়ার্ড। মাঝমাঠ থেকে লম্বা পাসে বল নিয়ে ৫৬ মিনিটে ডিবক্সে ঢুকে যান সালাহ। একা গোলরক্ষককে পেলেও গোলমুখের সামনে মানেকে বল বানিয়ে দেন তিনি। ৫ মিনিট পর একইভাবে বাঁপ্রান্ত থেকে ফিরমিনোকে দিয়ে দলের চতুর্থ গোল করান সালাহ। মিলনারের কর্নার থেকে ৬৮ মিনিটে ইতালিয়ানদের জালে পঞ্চমবার বল পাঠান ফিরমিনো।

শেষ ১০ মিনিটে দুই গোল শোধ দিয়ে রোমা কিছুটা স্বস্তি ফেরায়। ৮১ মিনিটে নাইনগোলানের ক্রসে জেকো করেন গোল। ৮৪ মিনিটে লিভারপুলের ডিবক্সে মিলনারের হাতে বল লাগলে পেনাল্টি পায় রোমা। পেরোত্তি স্পট কিক থেকে করেন অতিথিদের দ্বিতীয় গোল।

আগামী ২ মে অলিম্পিক স্টেডিয়ামে লিভারপুলকে দ্বিতীয় লেগে স্বাগত জানাবে রোমা। তাদের জন্য ওই ম্যাচে অনুপ্রেরণা হতে পারে বার্সার বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়ানো জয়।

Print Friendly, PDF & Email