‘সে ঘটনাই এখন অনুপ্রেরণা’

স্পোর্টস লাইফ, প্রতিবেদক রোববার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জস বাটলারের আউটের পর বাংলাদেশের উদযাপন নিয়ে ঘটেছে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। বাংলাদেশের উদযাপনকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেনি ইংলিশরা। আর এ ঘটনায় মনের ভেতর উল্টো জেদ ধরে রেখেছে তারা। মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই ইঙ্গিত দিলেন ইংলিশ ক্রিকেট দলের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার মঈন আলী। সে ঘটনাকে অনুপ্রেরণায় পরিণত করে বাংলাদেশের টানা সপ্তম সিরিজ জয়ে রুখতে চায় সফরকারী দলটি।

এদিন চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে মঈন বলেন, ‘বাংলাদেশের দৃষ্টিকোণ থেকে সেটা অনেক বড় উইকেট ছিল তাই তারা উদযাপন করেছে। কিন্তু তার পরও উদযাপন করার কিছু পদ্ধতি আছে। প্রতিপক্ষকে কিছুটা হলেও সম্মান করতে হয়। এটা ম্যাচের আগে এবং পরেও হতে পারে। আমি আমার সতীর্থদের বলবো এটা থেকে জ্বলে উঠতে এবং সিরিজ ভালোভাবে শেষ করতে, এটাকে অনুপ্রেরণা তৈরি করতে।’

আগের ম্যাচে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে লক্ষ্যটা খুব বড় দিতে পারেনি বাংলাদেশ। ২৩৯ রানের সাদামাটা লক্ষ্যের শুরুতেই তুলে নেন চার উইকেট। তবে এক প্রান্তে ক্রমেই হুমকি হয়ে উঠছিলেন ইংলিশ অধিনায়ক জস বাটলার। ২৮তম ওভারের প্রথম বল খেলতে গিয়ে মিস করেন বাটলার। বল পায়ে লাগলে বেশ জোরালো আবেদন করেন তাসকিন। কিন্তু আম্পায়ার তাতে সাড়া না দিলে বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়েন তিনি। এরপর অধিনায়কের সঙ্গে আলোচনা করে রিভিউর সিদ্ধান্ত নেন তারা। রিভিউতে বাংলাদেশের পক্ষে সিদ্ধান্ত আসলে উদযাপন করেন বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা। আর বাংলাদেশের এমন উদযাপন পছন্দ হয়নি বাটলারের। তিনি জড়িয়ে পড়েন বিতর্কে।

সে ঘটনা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেনি ইংলিশরা। তাই এ সিরিজ জিতেই প্রতিশোধ নিতে চায় তারা। বাংলাদেশের টানা সপ্তম সিরিজ জয়ে বাধা হয়ে দাঁড়াতে বদ্ধপরিকর তারা। বিশেষ করে অধিনায়ক বাটলার জিততেই চান বলে জানান মঈন, ‘আমার মনে হয় সেই ঘটনা দুই দলকেই আরো উজ্জ্বল করে তোলে। উভয় দলই জিততে মরিয়া। বাংলাদেশ সর্বশেষ ছয়টি সিরিজ অপরাজিত রয়েছে। আমরাও অপরাজিত থাকতে চাই। আমি জানি, আমাদের কিছু খেলোয়াড় বিশেষ করে আমাদের অধিনায়ক এ ম্যাচে জয়ের জন্য মুখিয়ে আছে।’

তবে সে ঘটনা ভুলে সামনের ম্যাচগুলোতে দুই দল থেকেই ভালো ব্যবহার আশা করছেন মঈন, ‘আশা করি, উভয় দলইএ খেলায় তাদের ব্যবহার ভালো করবে এবং ক্রিকেটের নিয়ম মেনে চলবে, যাতে সিরিজ শেষে যখন এ সিরিজ সম্পর্কেআলোচনা হবে সবাই বলবে এটা খুব ভালো সিরিজ ছিল।’

Print Friendly, PDF & Email