স্পেনে গার্দিওলার বিমানে তল্লাশি, ইংল্যান্ডেও ঝামেলা

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ক : মাঠের ডাগ আউটে শ্রদ্ধার পাত্র হলেও রাজনৈতিকভাবে তিনি স্প্যানিশ সরকারের চোখের বিষ। সেটা কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার পক্ষে সোচ্চার থাকার জন্য। এ জন্য পেপ গার্দিওলাকে কিন্তু কম ধকল পোহাতে হচ্ছে না। কিছুদিন আগে গার্দিওলার ব্যক্তিগত বিমান তল্লাশি করেছেন স্পেনের সিভিল গার্ড কর্মকর্তারা। স্পেন থেকে নির্বাসিত কাতালোনিয়ার স্বাধীনতাকামী নেতা কার্লোস পুজেমন গার্দিওলার বিমানে আছেন—এ সন্দেহের বশে ম্যানচেস্টার সিটি কোচের বিমানে তল্লাশি চালানো হয়।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, গত রোববার এল প্রাত বিমানবন্দরে গার্দিওলার বিমানে তল্লাশি চালানো হয়। সিটি কোচের কাছে অনুমতি পর্যন্ত চাওয়ার প্রয়োজন মনে করেনি সিভিল গার্ড। তাঁর সঙ্গে কোনো কথা না বলেই তল্লাশি চালানো হয়। এ সময় বিমানে ছিলেন গার্দিওলার স্ত্রী ও সন্তান। স্পেনের দৈনিক লা ভ্যানগার্ডিয়া জানিয়েছে, গার্দিওলার বিমানে তল্লাশি চালানো নতুন কিছু নয়। এর আগেও নাকি তাঁর বিমান তল্লাশি করেছে সিভিল গার্ড।

পুজেমন কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা ঘোষণা করলেও তা শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। উল্টো তাঁকে দেশছাড়া করেছে স্প্যানিশ সরকার। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, পুজেমন এখন বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে বসবাস করছেন।

এদিকে গার্দিওলাও বসে নেই। বার্সেলোনার সাবেক এ স্প্যানিশ কোচ তাঁর মতো করেই প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। গত সোমবার এফএ কাপে উইগানের কাছে সিটির হারের ম্যাচে বুকের সঙ্গে হলুদ ফিতা সংযুক্ত করে ডাগ আউটে নেমেছিলেন গার্দিওলা। সেই ফিতা আসলে সিটি কোচের রাজনৈতিক বার্তা।

কাতালোনিয়ার স্বাধীনতাপন্থী কয়েকজন নেতাকে আটকে রেখেছে স্প্যানিশ সরকার। তাঁদের মুক্তির দাবিতে গার্দিওলার আবারও হলুদ ফিতা পরা মেনে নিতে পারেনি ইংল্যান্ডের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এফএ)। ‘রাজনৈতিক বার্তা বহন করা বিশেষ করে হলুদ ফিতা’ পরায় সিটি কোচের বিপক্ষে অভিযোগ গঠন করেছে এফএ। এটা সংস্থাটির পোশাক ও সরঞ্জামনীতির পরিপন্থী।

গার্দিওলা এর আগেও হলুদ ফিতা পরে ডাগ আউটে নেমেছেন। সে জন্য গত ডিসেম্বরে সিটি কোচকে দুবার মৌখিকভাবে সতর্ক করেছিল এফএ। কিন্তু তা না মানায় এবার তাঁর বিপক্ষে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এর জবাব দিতে আগামী ৫ মার্চ পর্যন্ত সময় পাবেন গার্দিওলা।

তবে সিটির এ কোচ যে তাঁর নীতিতে অটল থাকবেন, তা বোঝা গেছে আগেই। তাঁর জন্মভূমির দুই স্বাধীনতাকামী নেতা আটক হওয়ার পর গার্দিওলা বলেছিলেন, ‘এক দিনের জেলবাস অনেক বেশি মনে হলে দেখুন তারা কত দিন আটক রয়েছে। সবাই জানে, একদিন আমি এটা (হলুদ ফিতা) পরা বন্ধ করব। যেসব রাজনীতিবিদ আটক রয়েছেন, আমি তাঁদের সবার মুক্তি চাই।’

 
Print Friendly, PDF & Email