’৮৬ বিশ্বকাপের ম্যারাডোনা ফিরলেন মূর্তিতে

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কমঙ্গলবার ছিল ডিয়েগো ম্যারাডোনার ৫৮তম জন্মদিন। আর্জেন্টাইনরা দিনটি পালন করেছে তার মূর্তি উন্মোচন করে। ৩০ অক্টোবর ম্যারাডোনার জন্মদিন হলেও বৃষ্টির কারণে একদিন পর বুধবার ব্রোঞ্জের বিশাল মূর্তিটি উন্মোচন করা হয় বুয়েনস এইরেসে তার সাবেক ক্লাব আর্জেন্টিনোস জুনিয়র্সের কাছে।

১৯৭৬ সালে ম্যারাডোনা তার ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন আর্জেন্টিনোস জুনিয়র্স দিয়ে। অভিষেকের ১০ বছর পর ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপে তার নেতৃত্বেই দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জিতেছিল আর্জেন্টিনা। সেবারের আসরে বলতে গেলে লাতিন দেশটিকে একাই চ্যাম্পিয়ন বানিয়েছিলেন ম্যারাডোনা, বিশেষ করে কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তার পারফরম্যান্সকে ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জোড়া গোলের একটিকে ধরা হয় ‘বিংশ শতাব্দীর সেরা গোল’। ওই গোলের সময় বল পায়ে এগিয়ে চলা ম্যারাডোনার আদলে বানানো হয়েছে ৯ ফুট উচ্চতার ব্রোঞ্জের মূর্তি। মেক্সিকো বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে তার করা দুই গোল ফুটবল ইতিহাসের পাতায় লেখা আছে স্বর্ণাক্ষরে। যার প্রথমটিকে বলা হয় ‘হ্যান্ড অব গড’। ইংলিশ গোলরক্ষক পিটার শিলটনের মাথার ওপর দিয়ে হাত দিয়ে বল জালে জড়িয়ে দিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর।

তবে ম্যারাডোনার শ্রেষ্ঠত্বের আসল ছাপটা পড়ে মিনিট কয়েক পর, যখন নিজেদের অর্ধ থেকে ইংল্যান্ডের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় ও গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে করেছিলেন তিনি বিস্ময়কর এক গোল। ওই গোলের সময় বল নিয়ে এগিয়ে চলা ম্যারাডোনার আদলে বানানো হয়েছে মূর্তিটি।

মেক্সিকোর দ্বিতীয় সারির দলের কোচ হিসেবে কাজ করা ম্যারাডোনা অবশ্য উপস্থিত ছিলেন না তার মূর্তি উন্মোচন অনুষ্ঠানে।

Print Friendly, PDF & Email